অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

অস্তিত্বের সংকটে এখন আফগান সরকার


ফাইল ফটো : তালিবান প্রতিনিধিরা কাতারের দোহায় আফগান সরকারের সঙ্গে আলোচনা সম্পর্কে কথা বলছেন

যুক্তরাষ্ট্র সরকারের একটি নজরদারি সংস্থা, যার  দায়িত্ব হচ্ছে বাস্তব স্থান থেকেই ঘটনা  পর্যবেক্ষণ করা, জানিয়েছে আগস্ট মাসে যুক্তরাষ্ট্র সে দেশ থেকে তার সামরিক বাহিনী প্রত্যাহার সম্পন্ন করার পর  কাবুলে আফগান সরকার টিকে থাকার জন্য লড়াই করে যাবে এবং তালিবানের কাছে সরকারের পতন ঘটারও আশংকা আছে।

যুক্তরাষ্ট্র সরকারের একটি নজরদারি সংস্থা, যার দায়িত্ব হচ্ছে বাস্তব স্থান থেকেই ঘটনা পর্যবেক্ষণ করা, জানিয়েছে আগস্ট মাসে যুক্তরাষ্ট্র সে দেশ থেকে তার সামরিক বাহিনী প্রত্যাহার সম্পন্ন করার পর কাবুলে আফগান সরকার টিকে থাকার জন্য লড়াই করে যাবে এবং তালিবানের কাছে সরকারের পতন ঘটারও আশংকা আছে।

যুক্তরাষ্ট্রের উচ্চ পদস্থ সামরিক কর্মকর্তা এবং আফগান নেতাদের সতর্কতার সঙ্গে আশাবাদি মূল্যায়ন সত্ত্বেও আফগানিস্তান পুননির্মাণ বিষয়ক বিশেষ পরিদর্শক (SIGAR)’এর একটি নতুন প্রতিবেদনে পরিস্থিতিকে হতাশাব্যঞ্জক বলে বর্ণনা করা হয়েছে এবং এতে এই উদ্বেগেরই প্রতিধ্বণি শোনা যাচ্ছে যে আফগান নিরাপত্তা বাহিনী কোন রকম অর্থবহ প্রতিরোধ গড়ে তোলার জন্য প্রস্তুত নয়।

বুধবার প্রকাশিত ঐ প্রতিবেদনে বিশেষ মহাপরিদর্শক জন সপকো লিখেছেন, “সামগ্রিক ধারাটি আফগান সরকারের পক্ষে নয় এবং তার মোকাবিলা করে পরিস্থিতি পাল্টানো না গেলে আফগান সরকার অস্তিত্বের সংকটে পড়তে পারে”।

তিনি বলেন , “আফগান জাতীয় প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা বাহিনী (ANDSF) কোন কোন জেলা আবার নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে এবং কাবুলসহ ৩৪ টি প্রাদেশিক রাজধানী এখনও আফগান সরকারের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে । তবে সাধারণ ভাবে যে খবর পাওয়া যাচ্ছে তাতে ANDSF বাহ্যত অবাক ও অপ্রস্তুত হয়েছে এবং যেন খানিকটা পিছিয়ে পড়েছে।

এপ্রিল মাসে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এই ঘোষণা দেয়ার পর যে আমেরিকার যুদ্ধ-সেনারা আফগানিস্তান ত্যাগ করবে, যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা এ ব্যাপারে সতর্ক যে তাঁরা যেন আফগান সরকারের চ্যালেঞ্জকে ছোট করে না দেখেন।

এই তো গত রোববার যুক্তরাষ্ট্রের সেন্ট্রাল কমান্ডের কমান্ডার কেনেথ “ ফ্র্যাঙ্ক” ম্যাকেনজি কাবুলে সংবাদদাতাদের বলেন যে আফগান সরকার “এক কঠোর পরীক্ষার সম্মুখীন”। তবে তিনি আরও বলেন যে নিজেদের অপরিহার্যতা তৈরির জন্য তালিবানের প্রচেষ্টা সত্ত্বেও “ এই লড়াইয়ের বিষয়ে আগেভাগেই কোন সিদ্ধান্তে পৌঁছানো যায় না”।

আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গণি আরও ভাল ফলাফলের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন এবং বলেছেন আফগান সামরিক বাহিনী নগর এলাকার প্রতিরক্ষায় নজর দিয়ে আরও গতি সঞ্চারে সক্ষম হবে”।

আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের কোন বিমান ঘাঁটি না থাকা সত্ত্বেও , আফগান বাহিনীর পক্ষে যুক্তরাষ্ট্র বিমান অভিযান চালিয়ে আফগান সরকারকে সাহায্য করেছে । কর্মকর্তারা সংকল্প ব্যক্ত করেছেন যে এ ধরণের বিমান আক্রমণ অব্যাহত থাকবে যতদিন না তালিবান তাদের সামরিক আক্রমণ কমিয়ে আনে।

.

XS
SM
MD
LG