অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের ৬১ জন মধ্যে এইডস রোগী শনাক্ত


বাংলাদেশে আশ্রয়গ্রহণকারী রোহিঙ্গাদের মধ্যে সেপ্টেম্বরের দিকে মাত্র জনা পাচেক এইচআইভি পজিটিভ বা এইডস আক্রান্ত রোগীকে শনাক্ত করা হয়েছিল। অক্টোবরের মাঝামাঝি কর্তৃপক্ষীয় হিসেবে এই সংখ্যা ছিল ১৯ জন। বাংলাদেশের স্বাস্থ্য দফতর এখন বলছে, রোহিঙ্গাদের মধ্যে এইচআইভি পজিটিভ বা এইডস আক্রান্ত ৬১ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে ৩২ জন নারী, ১৯ জন পুরুষ ও ১০টি শিশু রয়েছে। কক্সবাজারের সিভিল সার্জন ড. আবদুস সালাম ভয়েস অফ আমেরিকাকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। যেসব রোহিঙ্গা এইডসে আক্রান্ত- তারা অবাধে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বসবাস করছেন; স্বাধীনভাবে ঘোরাফেরা ও চলাফেরা করছেন। এইডস আক্রান্ত রোগী হিসেবে তাদের জন্য যে কিছু বিধিনিষেধ থাকে-তাও নেই এদের ক্ষেত্রে। বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, কর্তৃপক্ষীয়ভাবে চিহ্নিতদের বাইরেও আরও অনেক এইডস আক্রান্ত রোহিঙ্গা শরণার্থী রয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। অনেকে বেসরকারী সংস্থার অধীনে অথবা বেসরকারী ক্লিনিকে চিকিৎসা নিচ্ছেন বলেও খবর পাওয়া যাচ্ছে। তবে বিষয়গুলো তারা গোপন করায় এর সত্যাসত্য যাচাই করা সম্ভব হয়নি।
বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ এখন রোহিঙ্গাদের মধ্যে এইডস আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা কতো হতে পারে তার কোনো সামগ্রিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা বা জরিপ কাজ চালায়নি। জাতিসংঘের এইডস বিষয়ক সংস্থা UNAIDS এর এক হিসেবে বলা হয়েছে, মিয়ানমারে ২ লাখ ৩০ হাজার এইডস আক্রান্ত রোগী রয়েছেন। এছাড়া এই পর্যন্ত এইডসে আক্রান্ত হয়ে ৭ হাজার ৮শ মিয়ানমারের নাগরিক ওই দেশেই মারা গেছেন। বিশ্বে নতুন আক্রান্ত এইডস রোগীর তালিকার দেশগুলোর মধ্যে মিয়ানমার ৩৫ নম্বরে রয়েছে।
রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মধ্যে এইচআইভি পজিটিভ বা এইডস আক্রান্ত রোগীদের নানা বিষয়ে ভয়েস অফ আমেরিকার সাথে কথা বলেছেন কক্সবাজারের সিভিল সার্জন ড. আবদুস সালাম।...ঢাকা থেকে আমীর খসরু

XS
SM
MD
LG