অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশ খেলাপীদের ব্যাংক ঋণ পুনঃতফসিলিকরণের ঘটনায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে টিআইবি


দুর্নীতিবিরোধী নজরদারী সংস্থা ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক তাদের নিজেদের নীতিমালাকে পাশকাটিয়ে বৃহৎ ঋণ খেলাপীদের ব্যাংক ঋণ পুনঃতফসিলিকরণের চলমান ঘটনায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে এক বিবৃতিতে। দেশের অন্যতম একটি শীর্ষস্থানীয় ঋণখেলাপী প্রতিষ্ঠানকে প্রায় ৪৩০ কোটি টাকা ঋণ পুনঃতফসিলিকরণের সম্মতির ঘটনার প্ররিপ্রেক্ষিতেই টিআইবি এই বিবৃতি দিয়েছে। বিবৃতিতে টিআইবি বলেছে, এই পদক্ষেপই প্রমাণ করে যে, কেন্দ্রীয় ব্যাংক অর্থাৎ বাংলাদেশ ব্যাংক একটি কায়েমী স্বার্থবাদীমহলের হাতে কার্যত: জিম্মি হয়ে পড়েছে এবং সংকটে জর্জরিত ব্যাংকিং খাতকে পুনরুজ্জীবিত করার পরিবর্তে তা ব্যাংকিং খাতকে আরো বেহাল অবস্থার দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

বিবৃতিতে টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, শাসকগোষ্ঠী এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যেভাবে খেলাপী হয়ে যাওয়া বা অন্যান্য সুবিধার মাধ্যমে সুবিধা পাওয়া ব্যবসায়ী গোষ্ঠীকে সুরক্ষা দিচ্ছে, তাতে মনে হচ্ছে দেশে ঋণখেলাপীর সংস্কৃতির প্রাতিষ্ঠানিকীকরণ হয়ে গেছে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ব্যাংকিং খাতকে ব্যবহার করে জনগণের করের টাকার হরিলুট হয়েছে বলে বিবৃতিতে বলা হয়। ড. ইফতেখারুজ্জামান বিবৃবিতে বলেন, এই লুটেরাদের একাশংই আবার পুনঃতফসিলিকরণসহ অন্যান্য সুবিধা নিয়ে আইন-প্রণেতা হওয়ার সুযোগ পেয়েছেন। টিআইবি এই পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য একটি নিরপেক্ষ এবং গ্রহণযোগ্য কমিশন গঠনের দাবি জানিয়েছে।

উল্লেখ্য, বর্তমানে দেশে ১ লাখ ১০ হাজার কোটি টাকা খেলাপী ঋণ রয়েছে, যা দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ। বৃহৎ প্রতিষ্ঠানের খেলাপী ঋণ পুনঃতফসিলিকরণ করা হয়েছে বর্তমানে প্রায় ২০ হাজার কোটি টাকার।

খেলাপী ঋণ, এই ঋণ পুনঃতফসিলিকরণ এবং ব্যাংকিং ও আর্থিক খাতের ওপরে এর প্রভাব সম্পর্কে বিশ্লেষণ করেছেন বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গর্ভনর ড. সালেহউদ্দিন আহমদ।

please wait

No media source currently available

0:00 0:06:04 0:00


XS
SM
MD
LG