অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশ থেকে বিদেশে অর্থ পাচারের প্রবণতা বাড়ছে


বাংলাদেশ থেকে অবৈধভাবে এবং অবৈধ পন্থায় বিদেশে অর্থ পাচারের ঘটনা নতুন না হলেও সাম্প্রতিককালে এই প্রবণতা বাড়ছে বলে বলছেন বিশ্লেষক এবং নজরদারী সংস্থাগুলো।

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক গবেষণা সংস্থা গ্লোবাল ফিন্যান্সিয়াল ইন্টিগ্রিটি (জিএফআই) সম্প্রতি এক প্রতিবেদনে বলেছে, দক্ষিণ এশিয়ায় অর্থ পাচারের ক্ষেত্রে ভারতের পরেই রয়েছে বাংলাদেশের স্থান। ২০১৪ সালে বাংলাদেশ থেকে প্রায় ৯১১ কোটি ডলার বা ৭৩ হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার হয়েছে। ২০০৫ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ থেকে পাচার হয়েছে ৭ হাজার ৫৮৫ কোটি ডলার অর্থাৎ ৬ লাখ ৭ হাজার কোটি টাকা।

সম্প্রতি সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ২০১৬ সালের বার্ষিক প্রতিবেদনে দেখা যায়, ২০১৫ সালে সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশীদের জমাকৃত অর্থ বেড়েছে ১৯ শতাংশ অর্থাৎ বর্তমানে জমাকৃত অর্থের পরিমাণ সাড়ে ৫ হাজার কোটি টাকা। এছাড়াও মালয়েশিয়ায় অর্থ পাচারের মাধ্যমে সেকেন্ড হোম সুবিধা প্রাপ্তিতে বাংলাদেশীদের বিশাল অংকের অর্থ রয়েছে।

কেন এই অর্থ পাচার হচ্ছে, পাচারকৃত অর্থ কোন কারণে বাংলাদেশে বিনিয়োগ হচ্ছে না, এতে দেশের ক্ষতির পরিমাণ কতো, কিভাবে পাচারকৃত অর্থ ফেরত আনা সম্ভব এসব বিষয়াদি নিয়ে বিশ্লেষণ করেছেন বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক বা বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ও অর্থনীতিবিদ ড. সালেহ উদ্দিন আহমেদ এবং ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ বা টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান। ঢাকা থেকে আমীর খসরু।

XS
SM
MD
LG