অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

গোমাংসের ওপর নিষেধাজ্ঞা বিষয়ে ভারতে বিতর্ক


উত্তর-পূর্ব ভারতে দলের মাটি শক্ত করার কথা বলেছেন বিজেপি সর্ব্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। উত্তর-পূর্ব ভারতের রাজ্যগুলির দলের নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে অমিত শাহ বিজেপি নেতৃত্বাধীন জোটের বিস্তারের লক্ষ্যের কথাই জানিয়েছেন। ওই বৈঠকেই বিজেপির অন্য এক শীর্ষ নেতা সাফ জানিয়েছেন যে, মানুষ কী খাবেন, তা নিয়ে নাক গলাতে ইচ্ছুক নয় দল।

উল্লেখ করা যেতে পারে কেন্দ্রের নতুন পর্যটনমন্ত্রী কে জি আলফোন্স বলেছেন, গোমাংস খাওয়াটা কেরল বাসীর পছন্দের ব্যাপার। তাঁর এই মন্তব্যের একদিন পরেই উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলির দলের নেতাদের বিষয়টি নিয়ে আশ্বস্ত করলেন ওই বিজেপি নেতা। দেশের সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, নর্থ-ইস্ট ডেমোক্র্যাটিক অ্যালায়েন্স (এনইডিএ)-র রুদ্ধদ্বার বৈঠকে গোহত্যার ব্যাপারে বিজেপির কঠোর অবস্থান সংক্রান্ত বিষয়টি উত্থাপিত করা হয় এবং গত বছর আঞ্চলিক দলগুলিকে নিয়ে বিজেপির নেতৃত্বে এই জোট গড়ে ওঠে।

গতকালই এই বৈঠকে অমিত শাহ জানিয়েছেন যে, তিনি ওই অঞ্চলের আটটি রাজ্যেই জোটকে ক্ষমতায় দেখতে চান। সিকিমের নেতাদের প্রেজেন্টেশনের সময়ও প্রসঙ্গটি উঠে আসে। উত্তর-পূর্বের প্রথম রাজ্য হিসেবে সিকিমে যে কোনও ধরনের গোহত্যায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। ওই রাজ্যে ক্ষমতাসীন সিকিম ডেমোক্র্যাটিক ফ্রন্টের শরিক বিজেপি। রাজ্যের জোটের প্রতিনিধি দল এ ক্ষেত্রে এই আইনের উল্লেখ করেন। এর পরই মেঘালয়ের নেতা পল লিংডো এবং সাংসদ কনরাড সাংমা ব্যাখ্যা চান। তাঁরা জানতে চান, গোমাংসের ওপর নিষেধাজ্ঞা নীতিগত বিষয় কিনা। প্রসংগত বলা যেতে পারে আগামী বছর মিজোরাম, নাগাল্যান্ড, ত্রিপুরার সঙ্গে নাগাল্যান্ডেও বিধানসভা নির্বাচন। গত জুন মাসে এই গোংমাংস সংক্রান্ত ইস্যুতেই নাগাল্যান্ডের কয়েকজন বিজেপি নেতা দল ছেড়েছিলেন।সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, সংশ্লিষ্ট বৈঠকে নাগাল্যান্ডের নেতাদের উদ্বেগের উত্তরে বিজেপি নেতা তথা এনডিএ আহ্বায়ক হিমন্ত বিশ্ববর্মা আশ্বাস দেন যে, স্থানীয় বাসিন্দাদের প্রথা ও খাদ্যাভ্যাসের বিষয়ে হস্তক্ষেপ করতে চায় না বিজেপি।

please wait

No media source currently available

0:00 0:00:52 0:00

XS
SM
MD
LG