অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ব্রিটেনে চীনের রাষ্ট্রদূতের পার্লামেন্টে প্রবেশ নিষিদ্ধ করলেন স্পিকার লিন্ডসে হয়েল


ফাইল ফটো-চীনের পররাষ্ট্র বিষয়ক উপমন্ত্রী ঝেং জেগুয়াং চীনের বেইজিংয়ে চীন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে বাণিজ্য আলোচনার অবস্থা নিয়ে একটি সংবাদ সম্মেলনে অংশ নেন।১৩ ডিসেম্বর ২০১৯।

ব্রিটিশ হাউস অব কমন্সের স্পিকার লিন্ডসে হয়েল ব্রিটেনে চীনের রাষ্ট্রদূত ঝেং জিগুয়াংকে পার্লামেন্টে প্রবেশ করা থেকে নিষিদ্ধ করেছেন। ছয় মাস আগে পাঁচজন রক্ষণশীল আইনপ্রণেতা ও দুই সহকর্মীর ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা যতক্ষণ তুলে নেয়া না হচ্ছে ততক্ষণ এই নিষেধাজ্ঞা বলবত থাকবে।

হাউস অব কমন্সের স্পিকারের আরোপিত কোন বিদেশী দূতের উপর এমন নিষেধাজ্ঞা এই প্রথম। তবে এই নিষেধাজ্ঞা ইঙ্গিত দিচ্ছে যে বেইজিংয়ের আক্রমণাত্মক কূটনীতির কারণে ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষের বিরক্তি ক্রমশ বাড়ছে। স্থানীয় গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নিষেধাজ্ঞা ঘোষণার আগে হয়েল ডাউনিং স্ট্রিট এবং ব্রিটেনের পররাষ্ট্র দফতরের সঙ্গে পরামর্শ করেন।

ব্রিটেনের মন্ত্রিসভায় ব্যাপক রদবদলের অংশ হিসেবে, প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন প্রাক্তন বাণিজ্যমন্ত্রী লিজ ট্রাসকে ব্রিটেনের নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগের মাত্র কয়েক ঘণ্টা আগে জেগুয়াং-এর ওপর এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। ট্রাসকে চীনের ওপর কড়া নজরদারী ব্যক্তি হিসেবে দেখা হয় এবং অধিকার লঙ্ঘনের জন্য চীনের কমিউনিস্ট সরকারের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য তিনি এর আগে তদবির করেছেন।

সপ্তাহের মাঝামাঝি এক বিবৃতিতে হয়েল বলেন: "আমি মনে করি না যখন চীন আমাদের কয়েকজন সদস্যের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে এমন সময়ে চীনের রাষ্ট্রদূতের কমন্স এস্টেটে এবং আমাদের কর্মস্থলে আসা উচিত।"

গত সপ্তাহে হয়েল চীনা নিষেধাজ্ঞা আরোপিত ঐ ব্রিটিশ আইনপ্রণেতাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। তারা হয়েলকে ঐ দূতের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের জন্য অনুরোধ জানান। লন্ডনে চীনা দূতাবাস জেগুয়াংয়ের নিষেধাজ্ঞাকে "নিন্দনীয় এবং কাপুরুষোচিত" বলে বর্ণনা করেছে।

জুন মাসে দূত হিসেবে নিযুক্ত জেগুয়াং-এর একটি ব্রিটিশ পার্লামেন্টারি দলের সঙ্গে চীন বিষয়ে কথা বলার কথা থাকলেও সেই আমন্ত্রণ প্রত্যাহার করে নেয়া হয়।

XS
SM
MD
LG