অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ইকুটোরিয়াল গিনি নিরাপত্তাজনিত উদ্বেগে ক্যামেরুনের নাগরিকদের ফেরত পাঠাচ্ছে


ফাইল ছবিতে ক্যামেরুনের কাই-ওসিতে ইকুটোরিয়াল গিনি এবং গ্যাবনের সীমান্ত চিহ্নগুলো দেখা যাচ্ছে। মে ২৩, ২০১৫।

ইকুটোরিয়াল গিনি দেশটিতে অবৈধভাবে বসবাস করা হাজার হাজার ক্যামেরুনের নাগরিককে ফেরত পাঠাতে শুরু করেছে। দেশটি ক্যামেরুনের ঐ নাগরিকদের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য উদ্বেগের কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছে।

রাজধানী মালাবোতে কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ক্যামেরুনের নাগরিকরা দেশটির পশ্চিমাঞ্চলে চলা সংঘাত থেকে বাঁচতে পালিয়ে আসে। ঐ অঞ্চলে সরকারী সেনারা অ্যাংলোফোন বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গে লড়াই করছে।

ক্যামেরুনের শত শত নাগরিক, যাদের এরই মধ্যে দেশটিতে ফেরত পাঠানো হয়েছে, তারা তাদের জিনিসপত্র আনার জন্য ইকুটোরিয়াল গিনিতে ফিরে যাবার চেষ্টা করছেন।

ক্যামেরুনের দক্ষিণাঞ্চলের বাণিজ্যিক শহর কিওসির প্রায় ৪০ জন মানুষ আজ মঙ্গলবার সকালে ইকুটোরিয়াল গিনিতে প্রবেশ করতে চায়। তাদের মধ্যে একজন ফিলিপ ওয়োনো। ৩৩ বছর বয়সী ওয়োনো ভবন নির্মান সামগ্রীর দোকানের মালিক।

ওয়োনো বলেন, ইকুটোরিয়াল গিনির পুলিশ বাটা শহরে থাকা তার বাড়ি থেকে তাকে জোরপূর্বক তাড়িয়ে দিয়েছে। তিনি বলেন, গত ৫ই নভেম্বর অন্যান্য ৬৫ জন ক্যামেরুনবাসীর সঙ্গে তাকে ফেরত পাঠানো হয়।

ক্যামেরুনের দক্ষিণ অঞ্চলের সরকারী কর্মকর্তারা বলেছেন, প্রতিবেশী দেশ ইকুটোরিয়াল গিনি থেকে গত মাসে কমপক্ষে ৬০০ জন ক্যামেরুনবাসীকে ফেরত পাঠানো হয়েছে।

এই সপ্তাহে ক্যামেরুন জানিয়েছে, ইকুটোরিয়াল গিনির সঙ্গে তারা আলোচনা করছে, যাতে কাগজপত্রহীন অভিবাসীদের- বসবাসের অনুমতি পেতে বা স্বেচ্ছায় ক্যামেরুনে ফিরে যেতে তিন মাস সময় দেয়া হয়।

ইকুটোরিয়াল গিনিতে থাকা ক্যামেরুনের রাষ্ট্রদূত ডিজায়ার জিন ক্লদ ওওনো মেনগুয়েল বলেছেন, ক্যামেরুনের প্রায় এক হাজার নাগরিক স্বেচ্ছায় দেশে ফিরে যেতে চান।

XS
SM
MD
LG