অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

উগ্রবাদ নিয়ে উৎকন্ঠা এখন বিশ্বব্যাপী।যুক্তি পরাস্ত হচ্ছে বার বার অপশক্তির কাছে। ভক্তিও আনত প্রায় অপশক্তির উপদ্রবেই ।

মানবতাবোধের প্রতি অকষ্মাৎ এই চ্যালেঞ্জ কেন, এর স্বরূপ কি, কী ভাবেই বা এ থেকে বেরিয়ে আসা যায় , এ সব কিছুর অনুসন্ধান ও বিশ্লেষণ আমাদের এই রবিবারিক আয়োজনে।

আজ থেকে প্রায় সতেরো বছর আগে যখন আমরা একুশ শতকে প্রবেশ করলাম, তখন বিশ্বজুড়ে ছিল এক প্রচন্ড আশাবাদ ।কেবল যে শতাব্দির পরিবর্তনের কারণে , তা বোধ হয় না, বার্লিন দেওয়ালের অবসান থেকে শুরু করে বৈদ্যুতিন প্রযুক্তির বিস্তার পর্যন্ত প্রায় সব কিছুর মধ্যেই বিশ্বব্যাপী এক আশাবাদের সঞ্চার হয়েছিল । বানিজ্যিক ব্যাপ্তির বাইরেও বিশ্বায়ন শব্দটির একটি মানবিক চালচিত্রও আমরা লক্ষ্য করেছি। কিন্তু এরই পাশপাশি ২০০১ সালের ১১ই সেপ্টেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের উপর ব্যাপক এক সন্ত্রাসী হামলায় প্রায় তিন হাজার লোক প্রাণ হারায় , আহত হয় এর দ্বিগুণ সংখ্যক লোক। সেই সময় থেকে আজ পর্যন্ত বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে উগ্রবাদ সহিংস আকার ধারণ করেছে । বাংলাদেশ ও সে থেকে মুক্ত নয় । উগ্রবাদের সংজ্ঞা ও বিস্তার নিয়ে আজ যাঁদের মন্তব্য সংযুক্ত হলো , তাঁরা হচ্ছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসের অধ্যাপক , বিশিষ্ট নিবন্ধকার ডঃ সৈয়দ আনোয়ার হোসেন , যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের মিডলবারি ইন্সটিটিউট অফ ইন্টারন্যাশনাল স্টাডিজ এর সন্ত্রাসবাদ বিষয়ক অধ্যাপক জেওফ্রে বেইল এবং আলেম সমাজের একজন, জনাব আশরাফ আলী, যিনি ধর্মকে, ঘৃণা নয়, ভালোবাসার বিষয় মনে করেন।

XS
SM
MD
LG