অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

হাইতির অভিবাসীদের টেক্সাস-মেক্সিকো সীমান্ত থেকে স্বদেশে ফেরত পাঠানো হলো 


যুক্তরাষ্ট্রের কতৃপক্ষ হাইতির অভিবাসীদের দেশে ফিরিয়ে আনার পর রবিবার তারা বিমানবন্দরে ট্যাক্সি ভাড়া করছেন, ১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২১, ছবি রাল্ফ টেডি এরোল/রয়টার্স

হাইতির বেশ কিছু অভিবাসীকে রবিবার যুক্তরাষ্ট্রের অভিবাসন এবং কাস্টমস এনফোর্সমেন্ট বা ICE-এর তিনটি ফ্লাইটে হাইতির রাজধানী পোর্ট অ প্রিন্সে ফেরত পাঠানো হয়। যেভাবে তাদেরকে ফেরত পাঠানো হয়এবং আটকাবস্থায় তাদের প্রতি যে আচরণ করা হয়েছে , তারা তার সমালোচনা করেছেনI

দিয়েওদোনে ক্যাসানে ভয়েস অব আমেরিকাকে জানান, "তারা আমাদের জিনিসপত্র নিতে দেয় নি, মনে হয়েছে এ যেন হাজত বাস, আমাদের খাবার বা কিছুই দেয়া হয় নি "I সে উত্তরাঞ্চলীয় হাইতির গোনাইভস-এর অধিবাসী টেক্সাস সীমান্তে আসার আগে সে চিলেতে ছিল I সে আরো জানায় " তারা আজ খুব ভোরে আমাদেরকে জাগিয়ে তোলে এবং বলে "চল এবার" এবং আমরা বুঝে যাই যে আমাদেরকে বিমানবন্দরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে"I

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক মহিলা বলেন, যে তিনি চিলেতে বসবাস করতেন, তবে তার বৈধ কাগজপত্র ছিল না। তাই তাকে সে জায়গা ছাড়তে হয় I তিনি জানান, আটকাবস্থায় হাইতির লোকজনদের প্রতি ভিন্নতর আচরণ করা হোতI VOA কে মহিলা জানান, ভেনেজুয়েলা, কলম্বিয়া এবংনিকারাগুয়ার আটককৃতদের যখন তারা চাইতেন তাদের পরিধান বদল করতে দেয়া হতো I তিনি জানান তার অনুরোধ রাখা হয় নি এবং জানান সীমান্তরক্ষীরা ৪ দিন আগে যে কাপড়সহ তাকে আটক করেছিলেন, তিনি সেই একই পরিধান পরে ছিলেন I

ভয়েস অব আমেরিকাকে তিনি জানান, "আমাদের সমস্যাটা হচ্ছে যেভাবে আমাদের ফেরত পাঠানো হয়েছেI আমাদের সঙ্গে এমন ব্যবহার করা হয়েছে যে আমরা যেন পরিবারহীন এবং বুদ্ধিমান নইI আমাদেরকে রক্ষা করার কেউ ছিল নাI আইনানুযায়ী আমাদেরকে একটি দলিল দেয়ার কথা, যাতে বর্ণনা থাকবে এবং যা আমরা সই করবোI এমন কোনো দলিল আমাদেরকে দেয়া হয় নিI তারা নিজেরাই সেই দলিলে স্বাক্ষর দিয়েছে I তারা আমাদের পাসপোর্ট নিয়ে যায় এবং টেক্সাস বিমানবন্দরে সেই পাসপোর্ট তারা ফেরত দেয় নিI শুধুমাত্র পোর্ট অ প্রিন্সের পথে ফ্লাইটে আমরা সেই পাসপোর্ট ফিরে পেয়েছি" I

XS
SM
MD
LG