অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

হ্যালো ওয়াশিংটন: সন্ত্রাস দেশে দেশে; কৌশল বিচিত্র


সন্ত্রাস এখন আর কোন বিশেষ দেশের কিংবা বিশেষ অঞ্চলের সীমারেখায় আবদ্ধ নেই, প্রাচ্য ও প্রতীচ্যের প্রায় সব দেশেই সন্ত্রাস এখন সংক্রামক ব্যাধি। সন্ত্রাস স্থান, কাল, পাত্রভেদে এক ঘৃণ্য অপরাধ এবং সব সময়ে তা নিরীহ মানুষের প্রাণ নাম ঘটায়। তবে আগে লক্ষবস্তু স্থির করে সন্ত্রাস চালানো হতো। এমন কি ৯/১১ ‘র যে সন্ত্রাস, সেখানে কয়েক হাজার নিরীহ মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন, কিন্তু বিন লাদেনের লক্ষ্য ছিল আমেরিকার টুইন টাওয়ারের পতন ঘটানো, বাংলাদেশের হোলি আর্টিজানেও নিরীহ লোকজন প্রাণ হারিয়েছেন কিন্তু সেটারও লক্ষ্য ছিল কিছু বিদেশিকে হত্যা করে বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক গতিকে রুদ্ধ করা।

এই সব ঘৃণ্য অপরাধের পর আমরা ইদানিং সময়ে বিশেষত ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশে লক্ষ্য করেছি, পথচারির উপর ফুটপাতে যানবাহন তুলে দিয়ে মানুষ হত্যার পরিকল্পিত প্রয়াস। এ ধরণের ঘটনা বিশ্বজুড়ে মানুষের নিরাপত্তা নিয়ে বড় রকমের প্রশ্ন উত্থাপন করেছে। দক্ষিণ এশিয়াও এ থেকে মুক্ত নয়। আমরা জানি সোমবার যুক্তরাষ্ট্রের আফগান নীতি ঘোষণা করতে গিয়ে, প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প সন্ত্রাসবাদ পুষে রাখার জন্য পাকিস্তানকে সরাসরি দায়ী করেছেন। পাকিস্তান যদিও এই অভিযোগ অস্বীকার করছে, কিন্তু পাকিস্তানে যে সন্ত্রাসবাদ বেশ একটা মজবুত অবস্থানে রয়েছে, সেটিও অস্বীকার করার উপায় নেই।

এ সব বিষয় নিয়েই শ্রোতাদের জিজ্ঞাসার জবাব দেবেন, আজ আমাদের তিন জন অতিথি । ঢাকা থেকে রয়েছেন Institute of Conflict, Law & Development Studies ‘এর প্রধান এবং বিশিষ্ট নিরাপত্তা বিশ্লেষক অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল আব্দুর রশিদ, রয়েছেন কোলকাতা থেকে কোলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের সুরেন্দ্রনাথ উইমেন্স কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপিকা সংঘমিত্রা সরকার এবং ঢাকা থেকে আরো রয়েছেন Bangladesh Institute of Peace & Security Studies ‘এর সিনিয়র ফেলো জনাব শাফকাত মুনির। সঞ্চালনায় ছিলেন আনিস আহমেদ।

XS
SM
MD
LG