অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ভারতের কর্মকর্তারা বলছেন, নাগাল্যাণ্ডে ভুলবশতঃ নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে অন্ততঃ ১৪ জন সাধারণ নাগরিক নিহত 


ফাইল ছবি, নুতন দিল্লির রাজপথে ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবস প্যারেড মহড়ায় অংশগ্রহণরত আসাম রাইফেলসের একটি দল, ১৮ই জানুয়ারী, ২০১৬, ছবি /প্রকাশ সিং/এএফপি

সরকারি ও সামরিক কর্মকর্তারা রবিবার জানান, ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনী প্রত্যন্ত উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় নাগাল্যান্ডে বেপরোয়া গুলি চালালে ভুলবশতঃ অন্তত ১৪জন উপজাতীয় নাগরিক ও একজন নিরাপত্তা সদস্যের মৃত্যু হয়েছেI

ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ শনিবার রাতে বলেন, সাধারণ নাগরিকের মৃত্যুর খবরে তিনি 'মর্মাহত'I

নাগাল্যান্ডের মুখ্যমন্ত্রী নেইফিউ রিও রয়টার্স মাধ্যমকে জানান এ ব্যাপারে তদন্ত শুরু করা হবে এবং ঘটনায় সংশ্লিষ্টদের বিচার করা হবেI তিনি এই ঘটনাকে এক গোয়েন্দা ব্যর্থতা বলে অভিহিত করেনI

নতুন দিল্লি ভিত্তিক কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা দপ্তর জানায়, অন্তত এক ডজন সাধারণ নাগরিক ও নিরাপত্তা বাহিনীর কয়েকজন সদস্য হামলায় আহত হয়েছেনI

নাগাল্যান্ডের স্থানীয় বাসিন্দারা প্রায়শই সেনাবাহিনীকে বিদ্রোহী গ্ৰুপের বিরুদ্ধে অভিযানে ভুলবশতঃ স্থানীয় নিরীহ লোকজনদের লক্ষ্যবস্তু করার অভিযোগ এনে থাকেনI

নাগাল্যান্ডে অবস্থিত পুলিশের একজন উর্ধতন কর্মকর্তা জানান, এই ঘটনাটি ঘটে মিয়ানমার সীমান্ত সংলগ্ন মন শহরের ওটিঙ নামক গ্রামে যেখানে আসাম রাইফেলসের সদস্যরা বিদ্রোহী বিরোধী অভিযানে লিপ্ত ছিলI ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনীর একটি অংশ হিসাবে আসাম রাইফেলস ওই রাজ্যে বিদ্রোহ বিরোধী অভিযানে নিয়োজিত রয়েছেI

৩০ বা তার অধিক কয়লা শ্রমিক বহনকারী একটি ট্রাক আসাম রাইফেলসের শিবির এলাকা দিয়ে যাওয়ার সময় গুলি চালনা শুরু হয়I

সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার অনুমতি না থাকায় পরিচয় গোপন রাখার শর্তে শীর্ষ একজন পুলিশ কর্মকর্তা রয়টার্সকে জানান, সেনাবাহিনীর কাছে ওই এলাকায় কিছু জঙ্গি তৎপরতার গোয়েন্দা তথ্য ছিল, তাই ট্রাকটি দেখেই খনির শ্রমিকদের বিদ্রোহী ভেবে তারা গুলি চালায় এবং ৬জন শ্রমিককে হত্যা করেI

তিনি জানান, "গ্রামে গুলি চালানোর সংবাদ ছড়ালে শত শত উপজাতীয় লোকজন সেনা শিবিরটি ঘিরে ফেলেনI তারা আসাম রাইফেলসের গাড়ি পুড়িয়ে দেন এবং দেশীয় বা অপ্রচলিত অস্ত্র দিয়ে সেনাদের সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত হন"I

XS
SM
MD
LG