অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ব্যাংক হিসাব তলবের ঘটনা আগে কখনও ঘটেনিঃ সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিক নেতারা  


যৌথ সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিক ইউনিয়নের নেতারা

পেশাদার সাংবাদিকদের প্রতিষ্ঠিত সংগঠনগুলোর নির্বাচিত শীর্ষ নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলব করা বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি নজিরবিহীন ঘটনা। কেননা এর আগে কোনদিন কোন সময়ে এরকম ঘটনা ঘটেনি। দ্বিধাবিভক্ত সাংবাদিক ইউনিয়নের নেতারা এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে এমন প্রতিক্রিয়াই ব্যক্ত করেছেন।

গত ১২ই সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ ব্যাংকের ফাইনান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট ১১ সাংবাদিক নেতার ব্যাংকের হিসাব চেয়ে চিঠি পাঠায়। এর প্রতিবাদেই এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। শনিবার দুপুরে অনুষ্ঠিত এই সংবাদ সম্মেলন থেকে এই ঘটনার প্রতিবাদ জানাতে রবিবার দুপুরে প্রেস ক্লাবের সামনে এক সমাবেশ ডাকা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, শীর্ষ নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলবের মাধ্যমে সাংবাদিকতা পেশাকে জনগণের কাছে প্রশ্নবিদ্ধ করা হয়েছে। কেন এবং কি কারণে ফাইনান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট চিঠি দিলো তা বোধগম্য নয়। এতে করে সারা দেশে সাংবাদিকদের মনে নানা ধরনের আশঙ্কার সৃষ্টি হয়েছে।

এই বিষয়টি দেশ-বিদেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে ব্যাপকভাবে প্রচারিত হয়েছে। এতে করে দেশের ভাবমূর্তিও বিনষ্ট হচ্ছে। কারণ গোটা বিশ্বে গণতন্ত্রে বিশ্বাসী দেশের সরকার ও সচেতন সমাজ মত প্রকাশের স্বাধীনতার ওপর কোনো ধরনের বাধা সৃষ্টি কিংবা কোনো ধরনের চাপ প্রয়োগের কৌশল মেনে নেয় না, নিতে পারে না। ১১ শীর্ষ নেতার পক্ষে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক মসিউর রহমান খান সরকারের দায়িত্বশীল কর্তৃপক্ষের কাছে এই ঘটনার সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা ও প্রতিকার দাবি করেন। বলেন, এতে করে সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। নেতৃবৃন্দের ব্যাংক হিসাবে যদি কোন অস্বাভাবিক লেনদেন কিংবা কোন ধরনের মানি লন্ডারিং কিংবা জঙ্গি অর্থায়নের তথ্য-উপাত্ত পাওয়া যায় তা যেন গণমাধ্যমে প্রকাশ করা হয়। বলা হয় সাংবাদিকদের সুরক্ষা, স্বাধীনতা ও মর্যাদার প্রশ্নে কোন ধরনের হুমকি-ধামকিতে আমরা অতীতে পিছপা হইনি, ভবিষ্যতেও হব না।

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মোল্লা জালাল বলেন, এটি শুধু উদ্দেশ্যমূলকই নয় স্বাধীন সাংবাদিকতা ও মত প্রকাশের প্রতি হুমকি। তিনি এটাকে দুরভিসন্ধিমূলক বলে উল্লেখ করেন।

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন বলেন, তাদের সন্দেহ জাগে এটি গভীর ষড়যন্ত্রের কোনো অংশ কিনা। তিনি বলেন, জাতীয় প্রেস ক্লাবকে টার্গেট করা হয়েছে। ক্লাবের সুনাম ক্ষুণ্ণ করতেই ব্যাংক হিসাব তলব করা হয়েছে।

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের সভাপতি এম আব্দুল্লাহ বলেন, এই ঘটনার মধ্যে দিয়ে ১৫ হাজার সাংবাদিকের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করা হয়েছে। চরিত্র হনন করা হয়েছে।

সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন, সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মোল্লা জালাল, ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব আবদুল মজিদ, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (একাংশ) সভাপতি এম. আবদুল্লাহ, মহাসচিব নুরুল আমিন রোকন, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (একাংশ) ডিইউজের সভাপতি কাদের গনি চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, এবং ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি মুরসালিন নোমানী ও সাধারণ সম্পাদক মসিউর রহমান খান।

XS
SM
MD
LG