অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

যুক্তরাষ্ট্রের মেক্সিকো সীমান্তে অভিভাবকহীন অপ্রাপ্তবয়স্কদের নিরাপত্তায় প্রশাসন


যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের ভিসা প্রক্রিয়ায় এখন কয়েক হাজার অভিভাবকহীন অপ্রাপ্তবয়স্ক শিশু, কিশোর-কিশোরী যুক্তরাষ্ট্রের মেক্সিকো সীমান্তে অবস্থান করছে। এ বিষয়ে ভিওএর সংবাদদাতা সেলিয়া মেন্ডোজা তাদের কয়েকজনের সাথে দেখা করে তার এই প্রতিবেদনে জানাচ্ছেন যে, ইকুয়েডরে থেকে শুরু করে তিন হাজার কিলোমিটার যাত্রার পরে হোসে লুইস বয়েদুয়ানা যুক্তরাষ্ট্রে এসে পৌছেছে। হোসে লুইস বয়েদুয়ানা বলে, “আমি ২৬শে জানুয়ারী, মিগুয়েল আলেমানের সীমান্ত পেরিয়ে এবং নদী অতিক্রম করে তবে এখানে এসেছি”।

জোসে লুইসের বাবা ও মা ১৩ বছর আগে ইকুয়েডর থেকে যুক্তরাষ্ট্রে এসেছিলেন। সীমান্তে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের কর্তৃপক্ষ তাঁকে তার মা ও বাবার আইনী অভিভাবকত্ব যাচাই করার পরে মার্চ মাসে তাদের সাথে পুনরায় মিলিত হবার অনুমতি দিয়েছেন। হোসে লুইস বয়েদুয়ানার পিতা কার্লোস লোজাদা বলেন, "আমার ছেলের সাথে থাকার এই সুখ এক চিরকালীন সুখ।"বয়েদুয়ানা তিন বছর বয়স থেকেই ইকুয়েডরে তার দাদু ও দিদার সাথে থাকতো।ট্রাম্প প্রশাসনের সময় যে পারিবারিক বিচ্ছেদ হয়েছিল, সেটি এড়ানোর জন্য বাইডেন প্রশাসনের সময় যুক্তরাষ্ট্র- মেক্সিকো সীমান্তে অবস্থানকারী অভিবাসীদের কিছু নীতির পরিবর্তন করা হয়েছে এবং এই পুনর্মিলন তারই প্রতিফলন। তবে হোয়াইট হাউস এটাও স্পষ্ট করে দিচ্ছে যে, আশ্রয় চাইলেই যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের নিশ্চয়তা তারা কিন্তু কোনসময় দিচ্ছে না।

দক্ষিণ সীমান্তের সমন্বয়কারী রবার্টা জ্যাকবসন বলেন, “আমি জোর দিয়ে বলতে চাই যে অনেক লোক যুক্তরাষ্ট্রে আশ্রয় দাবী করলেই তা পাবে না, এবং এই প্রক্রিয়া শেষে তাদেরকে সম্ভবত তাদের জন্মস্থানে অর্থাৎ নিজেদের দেশেই ফিরে যেতে হবে। সুতরাং আমরা এখন যে বার্তাটি সবাইকে দিতে চাইছি সেটা হল অপেক্ষা করা, কারণ ভবিষ্যতে আরও অনেক বিকল্প, আরও সুরক্ষিত, কম ব্যয়বহুল এবং নিরাপদ উপায়ে যুক্তরাষ্ট্রে পৌঁছানোর সম্ভাবনা থাকবে”।

তবে অনেক পরিবারই এসব কথায় কোন কান দিচ্ছে না। টেক্সাসের এল প্যাসো থেকে সীমান্ত পেরিয়ে মেক্সিকোয় একটি আশ্রয়ে ৭0 বছর বয়সী এডা ক্রিস্টেলিয়া মেলান্দেজ তাঁর নাতনীকে নিয়ে থাকেন। তিনি বলেন, সীমান্ত পেরিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃপক্ষ এই দুজনকে মেক্সিকোয় ফেরত পাঠিয়েছিল। দিদিমা জানিয়েছেন যে মেয়েটির মা, যিনি শিকাগোতে থাকেন, শিশুটিকে একাই সীমান্ত পেরিয়ে প্রেরণের জন্য অনুরোধ করেছিলেন, কিন্তু এডা সে অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করেন, এবং নিজেই নাতনীকে মেয়ের কাছে পৌঁছে দেবার জন্য এই যাত্রা শুরু করেছিলেন। প্রবাসী এদা ক্রিস্টেলিয়া মেলান্দেজ বলেন, “আপনি কি ভেবে দেখেছেন যে যদি মেয়েটি একা সীমান্ত পার হতো তাহলে কি হতো? হ্যাঁ, তবে সে আমাকে বলেছিল,সে ভালভাবেই এ কাজ করতে পারবে”।

সীমান্তে ক্রমবর্ধমান সংখ্যায় যেসব অভিবাসী আসছেন, তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বাইডেন প্রশাসন সবরকম প্রচেষ্টা নিচ্ছেন, এই বর্ণিত ঘটনাটি এমনই একটি পরিবারের। যুক্তরাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্র বিভাগের পশ্চিম গোলার্ধ সংক্রান্ত বিষয়ক দপ্তর থেকে এমিলি মেন্দ্রলা বলেন, "আমরা এই অঞ্চল থেকে অভিভাবিহীন শিশুদের বিপজ্জনক ভ্রমণ রোধ করার জন্য এই অঞ্চলের দায়িত্বে থাকা সহযোগীদের সাথে কাজ করছি।" এদিকে, রিপাবলিকান বিধায়করা সীমান্তে অভিভাবকহীন অপ্রাপ্তবয়স্ক মানুষদের সংখ্যা বৃদ্ধির জন্য বাইডেন প্রশাসনকেই দায়ী করছেন।এল পাসো কাউন্টি রিপাবলিকান পার্টি রায়মুন্দো বাকা বলেন, "এটি 'মুক্ত সীমান্ত',এটি একটি উন্মুক্ত সীমান্ত।" কিন্তু,বাইডেন প্রশাসন যখন দীর্ঘদিনব্যাপী একটি সঙ্কটের স্থায়ী সমাধানের প্রচেষ্টা করছেন, তখন হোসে লুইস বয়েদুয়ানা শেষ পর্যন্ত তার লক্ষ্যে পৌঁছে গেছে।

হোসে লুইস বয়েদুয়ানা বলে," প্রকৃত সুখ কেবলমাত্র নিজের বাবা-মায়ের সঙ্গে থাকলেই পাওয়া যায়।"

please wait

No media source currently available

0:00 0:03:35 0:00
সরাসরি লিংক


XS
SM
MD
LG