অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

আফগান সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণ অব্যাহত রাখবে পাকিস্তান


ফাইল ছবি,পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের সীমান্তে ডুরান্ড লাইন বরাবর পাহারারত পাকিস্তানের একজন সেনা/এএফপি

সোমবার পাকিস্তান জানায় "কিছু বিভ্রান্তি" নিরসনে কূটনৈতিক চ্যানেলের মাধ্যমে তারা আফগানিস্তানের শাসকদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে যাচ্ছে, যেসব সমস্যার উদ্ভব হয়েছে দুটি দেশ বিভক্তকারী সীমান্তে নিরাপত্তা বেড়া নির্মাণের কারণে।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কোরেশী ইসলামাবাদের এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, তাঁর দেশ তাঁদের "স্বার্থ" রক্ষায় প্রতিশ্রুত এবং এক তরফাভাবে আফগানিস্তানের সঙ্গে তাদের ২,৬০০ কিলোমিটার দীর্ঘ সীমান্তে বেড়া নির্মাণ অব্যাহত রাখবে।

পাকিস্তানের শীর্ষ কূটনীতিক কাঁটাতার বেড়া নির্মাণে পাকিস্তানকে বাধা দিতে তালিবান সীমান্ত বাহিনীর সাম্প্রতিক প্রয়াসের প্রতি সাড়া দিয়ে এই মন্তব্য করেন। সাম্প্রতিক এই ঘটনা ঘটে দৃশ্যত এই সপ্তাহান্তে যখন আফগান পক্ষ থেকে বেড়ার কিছু অংশ ভেঙ্গে ফেলা হয়।

কোরেশী জোর দিয়ে বলেন, "আমরা নীরব থাকছি না, কাঁটাতার আমরা স্থাপন করেছি এবং আল্লাহরইচ্ছায় এই প্রয়াস আমরা অব্যাহত রাখবো। আফগানিস্তান আমাদের বন্ধুভাবাপন্ন এক প্রতিবেশী। কিছু বিভ্রান্তি সৃষ্টি হওয়ায় আমরা তাদের সঙ্গে কথা বলছি এবং কূটনীতির মাধ্যমে এর সুরাহা করা সম্ভব হবে"।

তালিবান প্রতিরক্ষা দপ্তরের একজন মুখপাত্র রবিবার বেড়া নির্মাণ কর্মসূচির সমালোচনা করেন।তিনি বলেন, "পাকিস্তানের ডুরান্ড লাইন বরাবর কাঁটাতার নির্মাণের এবং লাইন বরাবর উপজাতীয়দের বিচ্ছিন্ন করার কোনো অধিকার নেই"।

আফগানিস্তানের বিভিন্ন সরকার১৮৯৩ সালের ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক আমলের সীমানা নির্ধারণের বিরোধিতা করেছে। এই সীমান্ত ব্রিটিশ ভারত সরকারের একজন সেক্রেটারি, স্যার মর্টিমার ডুরান্ড ও তৎকালীন আফগান শাসক আব্দুর রহমান খানের স্বাক্ষরিত চুক্তির ফসল।

পাকিস্তান আফগানিস্তানের বিরোধিতাকে নাকোচ করে দিয়েছে। পাকিস্তান জানায় ১৯৪৭ সালে ব্রিটেন থেকে স্বাধীনতা লাভের পর উত্তরাধিকার সূত্রে তারা এই আন্তর্জাতিক সীমান্ত পায়। এ নিয়ে বিরোধ দুটি দেশের সম্পর্কে টানাপোড়েন অব্যাহত রেখেছে।

অবৈধ জঙ্গি তৎপরতা এবং চোরাচালান বন্ধে বিশাল সামরিক নেতৃত্বে কাঁটাতার নির্মাণের উদ্যোগ শুরু হয় ২০১৭ সালে। পাকিস্তানের কর্মকর্তারা জানান নির্মাণের ৯০ শতাংশের বেশি কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

XS
SM
MD
LG