অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

লকডাউনের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত নিম্নআয়ের মানুষের সহায়তায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৫টি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা


Street vendor in Dhaka

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে আরোপিত চলতি লকডাউনের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত নিম্নআয়ের মানুষের সহায়তায় ৩২০০ কোটি টাকার নতুন ৫ টি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন।

মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ প্যাকেজের কথা জানানো হয়েছে। প্রণোদনা প্যাকেজ গুলোর আওতায় শহর এবং গ্রামাঞ্চলের ক্ষতিগ্রস্ত নিম্নআয়ের মানুষের জন্য নগদ এবং অন্যান্য সহায়তার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

এসকল প্যাকেজের মধ্যে রয়েছে দিনমজুর, পরিবহন শ্রমিক, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী এবং নৌপরিবহন শ্রমিকদের জন্য জনপ্রতি নগদ আড়াই হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তা দান এবং শহর এলাকার নিম্নআয়ের জনসাধারণের জন্য সহায়তা যার আওতায় ২৫শে জুলাই থেকে ৭ই আগস্ট পর্যন্ত ১৪ দিন ৮১৩টি কেন্দ্রে বিশেষ ওএমএস বা কম মুল্যে খাদ্য সামগ্রী বিক্রির কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে। ৩৩৩ ফোন নম্বরে অনুরোধ জানালে জনসাধারণকে খাদ্য সহায়তা দেওয়ার জন্য প্যাকেজের আওতায় জেলা প্রশাসকদের অনুকূলে ১০০ কোটি টাকার বরাদ্দ রাখা হয়েছে। এছাড়াও থাকছে পর্যটন খাতের হোটেল, মোটেল ও থিম পার্কের কর্মচারীদের বেতন ভাতা পরিশোধের জন্য ব্যাংকের মাধ্যমে ৪ শতাংশ সুদে ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল ঋণ সহায়তা এবং গ্রামীণ এলাকায় কর্ম সৃজনমূলক কার্যক্রমের অর্থায়নের জন্য কম সুদে ঋণ প্রদান।

সরকারে নতুন এই প্রণোদনা প্যাকেজের বিষয়ে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ বা সিপিডি এর সম্মানিত ফেলো ড. মোস্তাফিজুর রাহমানের কাছে ভয়েস অফ অ্যামেরিকার তরফে তাঁর মন্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন সামগ্রিক ভাবে এটি সরকারের একটি ভালো উদ্যোগ যা অর্থনীতিতে গতি সঞ্চার করবে। তবে তিনি বলেন নগদ প্রণোদনার আওতা এবং পরিমাণ বাড়ানো গেলে দেশের অর্থনীতিতে আরও গতি সঞ্চার হবে।

সারা দেশে করোনার সংক্রমণ উদ্বেগজনক হারে বেড়ে যাওয়ায় গত পহেলা জুলাই থেকে শুরু হয় সাত দিনের লক ডাউন যার মেয়াদ পরে বাড়িয়ে ১৪ই জুলাই পর্যন্ত করা হয়। এর ফলে নিন্ম আয়ের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ আর্থিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হলে তাঁদের সহায়তার জন্য বিভিন্ন রাজনৈতিক দল এবং সুশীল সমাজের পক্ষ থেকে দাবী জানানো হয়।

XS
SM
MD
LG