অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সেনেট ফরেন রিলেশান্স কমিটিতে বাংলাদেশের শ্রম সমস্যার শুনানী


যুক্তরাষ্ট্র সেনেটের ফরেন রিলেশান্স কমিটিতে, ‘বাংলাদেশের শ্রম সমস্যা’ বিষয়ে এক শুনানী অনুষ্ঠিত হয়। শুনানীতে পররাষ্ট্র দফতরের Assistant Secretary Robert Blake এবং বাণিজ্য দফতর, AFL-CIO, তৈরী পোশাক শিল্পের প্রতিনিধিরা তাদের বিবৃতি তুলে ধরেন। কমিটির চেয়ারম্যান সেনেটার রবার্ট মেনেনদেজ তার বক্তব্যের শুরুতে বলেন, ‘রানা প্লাজার মর্মান্তিক ঘটনা আমাদের সবার জন্যই এক সতর্ক বার্তা পাঠিয়েছে’।
বাংলাদেশের শ্রম সমস্যা বিষয়ে সেনেট ফরেন রিলেশান্স কমিটির শুনানীতে চেয়ারম্যান সেনেটার রবার্ট মেনেনদেজ বলেন, কমিটি নিয়মিত এই ধরণের শুনানীর ব্যবস্থা করে না। তিনি উল্লেখ করেন যে সবশেষ সেই ২০০০ সালে চীনের বাণিজ্য সুবিধা নিযে শুনানী অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সেনেটার মেনেনদেজ বলেন, ‘রাণা প্লাজার মর্মান্তিক দূর্ঘটনা, পোশাক শিল্পের সবচাইতে ভয়াবহ ঘটনা, আমাদের সবার জন্যই এক সতর্ক বার্তা’। তিনি বলেন, এখানে আজ পররাষ্ট্র দফতর, শ্রম ও বাণিজ্য দফতর, এ এফ এল সি আই ও এবং আমেরিকার পোশাক শিল্পের প্রতিনিধিরা রয়েছেন, তারা তাদের বয়ান তুলে ধরবেন।
সেনেটার মেনেনদেজ বলেন, ‘আমি উল্লেখ করতে চাই যে, যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের সঙ্গে তার সম্পর্ককে অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে থাকে। বাংলাদেশ একটি মধ্যপন্থী, মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ গনতন্ত্র এবং আমাদের বাণিজ্য শরীক। বার্ষিক ৬শো কোটি ডলারেরও বেশী বাণিজ্যিক লেনদেন হয় এবং এর ফলে ১০ হাজার আমেরিকান কর্মসংস্থান হয়’।
ফরেন রিলেশাসন্স কমিটির চেয়ারম্যান বলেন, বিশ্বের সপ্তম জনবহুল দেশ বাংলাদেশ বিশ্বের খাদ্য নিরাপত্তা থেকে শুরু করে নারী-পুরুষের সমতা, মা ও শিশুর স্বাস্থ্য পরিচর্যা সকল ক্ষেত্রে নাটকীয় অগ্রগতি অর্জন করেছে। তবে অন্যান্য তৈরী পোশাক রফতানীকারী দেশের মতই বাংলাদেশ গরীব বিকাশমুখী দেশ, যার সামনে বহু অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ রয়েছে। তিনি বলেন, ‘সেই কারণেই আমরা চাই যে, বিশ্বের ক্রেতারা বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক অটুট রাখুক, এবং এই শিল্প ক্ষেত্রে কাজের পরিবেশ উন্নয়নে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা গ্রহণ করুক, যাতে পৃথিবীর আর কোথাও যেন রাণা প্লাজার মত ঘটনা না ঘটে’। তিনি উল্লেখ করেন যে, বাংলাদেশে ৪০ লক্ষ শ্রমিক পোশাক শিল্পে কাজ করছে যাদের মধ্যে ৮০ শতাংশ মহিলা। বাংলাদেশে খুবই কম পারিশ্রমিকে কাজ যায়, তবে শ্রমিকদের নিরাপত্তা ও অধিকার সীমিত। তাই বিশ্বের ক্রেতারা বিরাট লাভ করে থাকে।
তিনি সেই ১শো বছর আগে আমেরিকায় নিউইয়র্ক শহরে ট্রায়েঙ্গেল পোশাক কারখানায় অগ্রিকাণ্ডের উল্লেখ করে বলেন, সেই দূর্ঘটনা যেমন যুক্তরাষ্ট্রে শ্রমিক আন্দোলনের সূচনা করেছিল, বাংলাদেশে রাণা প্লাজা ও তাজরীন দূর্ঘটনা অনুরুপভাবেই প্রকৃত পরিবর্তনের সূচনা করতে পারে।
পররাষ্ট্র দফতরের এ্যাসিসটেন্ট সেক্রেটারী রবার্ট ব্লেক বলেন, ২০১২ সালের সেপ্টেম্বর মাস থেকে শ্রম আইনে কিছু উন্নতি হয়েছে, ২৭টি নতুন ট্রেড ইউনিয়ন রেজিস্ট্রি করা হয়েছে। বাংলাদেশ চলতি মাসেই সংসদে শ্রমিকদের নিরাপত্তা বিধান করে আইন পাশ করবে। তবে এখনও অনেক দূর্নীতি ও শাসন ব্যবস্থার চ্যালেঞ্জ রয়ে গেছে।
এ এফ এল সি আই ওর প্রতিনিধি সেলেস্টে ড্রেক পোশাক শিল্প কারখানায় পরপর দূর্ঘটনার উল্লেখ করে বলেন, পরিবর্তনের জন্য আর কত মৃতদেহের প্রয়োজন? এই সংগঠন ২০০৭ সাল থেকে বাংলাদেশের পোশাক শিল্পের বাধ্যবাধকতা পূর্ণ না করার জন্য বাংলাদেশের বিশেষ সুবিধা প্রত্যাহার করে নেবার আহ্বান জানিয়েছে।
শুনানী শেষে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আকরামুল কাদের আমাদের বলেন, ‘সেনেটার মেনেনদেজ যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের সার্বিক সম্পর্কে যে উন্নতি হয়েছে তার উল্লেখ করেন……আমরা আমাদের জিএসপি রিটেনশনের জন্য সরকারের যে অবস্থান সেটা তাদের কাছে আগেই তুলে ধরেছি। এখন আমরা অপেক্ষা করছি জুনের শেষ পর্য্যন্ত যখন এ বিষয়ে একটা সিদ্ধান্ত দেওয়া হবে’।

please wait
Embed

No media source currently available

0:00 0:05:23 0:00
সরাসরি লিংক
XS
SM
MD
LG