অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সিরিয়ায় ক্ষেপনাস্ত্র হামলা শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র


সিরিয়ায় ভয়াবহ রাসায়নিক অস্ত্র ব্যাবহারের বিরুদ্ধে ক্ষেপনাস্ত্র হামলা শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

অভিযোগ উঠেছে বাশার আল আসাদের বাহিনী ঐ রাসায়নিক অস্ত্র ব্যাবহার করছে যাতে এ পর্যন্ত একশজন অসামরিক লোক মারা গেছে। সিরিয়ান সরকারী বাহিনীর ওপর এই যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম হামলা।

যুক্তরাষ্ট্রের এক সেনা কর্মকর্তা ভয়েস অব আমেরিকাকে জানান পূর্ব ভূমধ্যসাগরে অবস্থান নেয়া যুক্তরাষ্ট্রের যুদ্ধ জাহাজ ইউএসএস পোর্টার এবং ইউএসএস রস থেকে ৫৯ তমাহক ক্ষেপনাস্ত্র ছোঁড়া হয়েছে।

এক নৌবাহিনীর কর্মকর্তা জানান পশ্চিম সিরিয়ার শায়রাত এয়ারফিল্ড লক্ষ্য করে ক্ষেপনাস্ত্র হামলা করা হচ্ছে। রাসায়নিক অস্ত্র ব্যাবহার করা হয়েছে ঐ এয়ারফিল্ড থেকে। যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষজ্ঞদের ধারণা ঐ রাসায়নিক অস্ত্র সারিন ও নার্ভ গ্যাস রয়েছে।

জাতীর উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প বিমান হামলার বিষয়টিও তোলেন। তিনি বলেন, “আজ রাতে আমি সিরিয়ার ঐ বিমান ঘাঁটি লক্ষ্য করে আঘাত হানার নিরদেশ দিয়েছি যেখান থেকে রাসায়নিক অস্ত্রের হামলা করা হচ্ছে”।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, “এই ধরণের ভয়াবহ রাসায়নিক অস্ত্রের ব্যাবহার ও তার বিস্তার রোধ করা যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় স্বার্থসহ নানাভাবে জরুরী।”

দাক্ষিন ফ্লরিডায় অবস্থানকারী প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে সিরিয়ায় রক্তপাত বন্ধে সকলকে এগিয়ে আসার আহবান জানান।

ফ্লরিডার মারা লাগো রিজোর্ট কেন্দ্রে চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এর সঙ্গে দু’দিনের সম্মেলনের সময় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প হঠাৎ করেই সিরিয়ায় এই ক্ষেপনাস্ত্র হামলার আদেশ দিলেন।

XS
SM
MD
LG