অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন- রাসায়নিক হামলার পর রাশিয়া এখন বাশার আসাদের ওপর থেকে সমর্থন প্রত্যাহার করে নেবে, তেমনটিই তিনি আশা করছেন-


যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসান বলেছেন- গেলো সপ্তাহের রাসায়নিক হামলার পর রাশিয়া এখন বাশার আল আসাদের ওপর থেকে তার সমর্থন প্রত্যাহার করে নেবে, তেমনটিই তিনি আশা করছেন।

বলেন- আসাদ পরিবারের শাসনামল এখন খতম হতে চলেছে,এটা আমাদের সবার কাছেই পরিস্কার এখন-

টিলারসান একথা বলেন ইটালীতে, যেখানে কিনা জি-সেভেন অন্তর্গত দেশ সমূহের পররাষ্ট্র মন্ত্রীবর্গের সঙ্গে আলোচনায় মিলিত হচ্ছেন তিনি।

টিলারসানের মস্কো যাত্রার আগে এই যে আলোচনা, এতে মূল বক্তব্যই ঐ সিরিয়াকে নিয়েই। রাশিয়ায় গিয়ে তিনি রূশ সরকারের কর্তাব্যক্তিদের সঙ্গে আলোচনায় বসবেন – কথা রয়েছে তেমনটিই।

ইটালী আলোচনা চলতে থাকা অবস্থাতেই, পৃথক আয়োজনে, তিনি আলাদা ভাবে- একান্তে, কথা বলেন জর্ডান,কাতার,সৌদি আরব,তুরস্ক এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সঙ্গে- সিরিয়ার গেলো সপ্তাহের রাসায়নিক হামলার প্রতিক্রিয়া নিয়ে।

সোমবার টিলারসানের সঙ্গে নিজ আলোচনার পর বৃটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসান বলেন- সিরিয়ার বিমান ঘাঁটির ওপর যুক্তরাষ্ট্রের ক্রুয ক্ষেপনাস্ত্রের আঘাত হানার পর পরিস্থিতি পাল্টিয়ে গিয়েছে এখন।জনসান বলেন-মিত্র পক্ষের দেশগুলো এখন সিরিয়ার সামরিক ব্যক্তিবর্গের ওপর আরো বিধিনিষেধ আরোপের কথা চিন্তা করবে- এবং সিরিয়ার সঙ্গে যোগসাজসে এ কান্ড ঘটানোয় সমন্বিত হিসসা নিয়েছে রূশ সামরিক বাহিনীর যারা সেই তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা গ্রহন বিষয়ে কথাবার্তা হবে- আলোচনা হবে আসাদ প্রশাসনের ত্রাস সঞ্চারী আচরণ নিয়ে।

পরে,সোমবারেই বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে’ টেলিফোনে কথা বলেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে।তাঁর দফতর থেকে জানানো হয়- এখন যে আর রাশিয়ার সঙ্গে জোট বেঁধে তার স্বার্থোদ্ধার হবেনা, কথাটা রাশিয়াকে বুঝিয়ে বলবার সময়-সুযোগ হয়েছে যে এখন- সে ব্যাপারে দু’ নেতাই একমত হন।

XS
SM
MD
LG