অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

কাজাখস্তানে সিরিয়া শান্তি আলোচনায় যুক্তরাষ্ট্র সাইডলাইনে


কাজাখস্তানের রাজধানী আস্তানায় চলমান সিরিয়া শান্তি আলোচনায় যুক্তরাষ্ট্র সাইডলাইনে। মধ্যপ্রাচ্যে কোনো একটি সংকট সমাধানের প্রক্রিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের শক্ত প্রতিনিধিত্বকে বাদ দিয়ে রাশিয়ার প্রভাব কতোটা কাজ করবে এই প্রশ্ন সকলের মনে।

আস্তানায় যেখানে রাশিয়া তুরস্ক ইরান সিরিয়া এবং সিরিয়ার বিদ্রোহী দলের প্রতিনিধিরা একটি দীর্ঘ মেয়াদী শান্তুি চুক্তির জন্যে আলোচনায় বসেছেন; সেখানে কাজাখস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত জর্জ ক্রোল একজন পর্যবেক্ষক মাত্র।

সংঘাত স্থানচ্যুতি ও খাদ্যাভাব- এসব নানা ধরনের মানবিক সংকটে পর্যদুস্ত সিরিয়ায় গৃহযুদ্ধের ষষ্ঠ বছর শুরু হলো। আর সেই সংকট থেকে কিভাবে বেরিয়ে আসা যায় বা সংকট কমানো যায় তার উপায় বের করতে সিরিয়া সরকার ও বিরোধীরা আস্তানায় শান্তি আলোচনায় মিলিত হয়েছেন। তারা চান দেশব্যাপি অস্ত্র বিরতি কার্যকর হোক; অন্তত যেনো দুর্গত অসহায় মানুষের মাঝে মানবিক সহায়তা সুষ্ঠুভাবে সরবরাহ করা সম্ভব হয়।

ওয়াশিংটন চায় ওই আলোচনা ফলপ্রসু হোক এবং তার মধ্যে দিয়ে সিরিয়া সংকটের একটি রাজনৈতিক সমাধানের পথ বেরিয়ে আসুক। পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয় সমুখপাত্র মার্ক টোনার যেমনটি বলেন;

“আমরা চাই এই রাজনৈতিক আলোচনা ফলপ্রসু হোক এবং তা অব্যাহত থাকুক; যার মধ্যে দিয়ে একটি সমাধান বেরিয়ে আসতে পারে। ওই আলোচনায় প্রয়োজন এমন একটি উপায় খুঁজে বের করা যার মাধ্যমে সিরিয়ার নাগরিকদের চাওয়ার পক্ষে, মতামতের ভিত্তিতে একটি গনতান্ত্রিক পদ্ধতি প্রতিষ্ঠার উপায় বের হয়। এ সিদ্ধান্ত আমরা নিতে পারবো না; সিরিয়ানদের নিজেদেরকে এর সমাধান বের করতে হবে আলোচনার মাধ্যমে”।

আস্তানা বৈঠকে বক্তারা আশা করেন এই আলোচনা ফলপ্রসু হবে।

“আমি বিশ্বাস করি আস্তানা আলোচনায় প্রয়োজনীয় শর্তাদি তৈরী হবে যার ওপর ভিত্তি করে সকল পক্ষ একটি অর্থপূর্ন সমাধানের পথ পাবেন যাতে জিনিভা কনভেনশন অনুযায়ী সিরিয়া সংকট সমাধান সম্ভব হয়”।

আস্তানায় এবারকার শান্তি আলোচনার উদ্যোক্তা রাশিয়া তুরস্ক ও ইরান। যুক্তরাষ্ট্রের এবার সরাসরি অংশগ্রহণ নেই।

এর অর্থ কি? অর্থাৎ ভবিষ্যতে মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাব নিয়ে কি কোনো প্রশ্ন আছে? এমন প্রশ্নের উত্তরে Center for Naval Analyses এর Research Scientist মাইকেল কোফম্যান বলেন, “আমার কোনো সন্দেহ নেই যে রাশিয়া ইরান এবং অন্যান্য দেশ বুঝবে যুক্তরাষ্ট্রের অংশগ্রহণ ছাড়া এ নিয়ে আলোচনা করে কোনো সমাধান বের করা কঠিন। ফলে আমি মনে করি এটি রাশিয়ার একটি রাজনৈতিক নকশা যুক্তরাষ্ট্রের পাশাপাশি তাদের অবস্থান যে বেশ শক্ত তা প্রকাশ করার লক্ষ্যে”।

প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের মনোনীত পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন বলেছেন রাশিয়া সিরিয়া তুরস্ক ও ইরান বলে দিচ্ছে সিরিয়ার কি কি শর্ত থাকবে। টিলারসন যুক্তরাষ্ট্রের সেনেটরদের বলেছেন ওয়াশিংটনের উচিৎ তুরস্কসহ যুক্তরাষ্ট্রের বন্ধুরাষ্ট্রসমূহের সঙ্গে সম্পর্ক আগের মতোই ধরে রাখা।

XS
SM
MD
LG