অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

কানাডা ইমিগ্রেশনে মুরাদের গতিরোধ, তাকে দেশে ফিরতে হচ্ছে


এমিরেটস এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে কানাডার উদ্দেশ্যে ঢাকা ছাড়েন মন্ত্রিত্ব হারানো ডা. মুরাদ হাসান। (ছবি- অ্যাডোবে স্টক)

বহুল আলোচিত ও বিতর্কিত সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানকে শেষ পর্যন্ত দেশেই ফিরে আসতে হচ্ছে। কারণ কানাডার ইমিগ্রেশন তার গতিরোধ করেছে। টরন্টো পিয়ারসন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে তাকে ফিরিয়ে দিয়েছে সে দেশের বর্ডার এজেন্সি। শুক্রবার দুপুরে আমিরাতের একটি ফ্লাইটে মুরাদ হাসান সেখানে অবতরণ করেন। নানা সূত্রে জানা যায়, বিমান থেকে নামার সঙ্গে সঙ্গে কানাডার বর্ডার এজেন্সি তাকে একটি নির্দিষ্ট কক্ষে নিয়ে যায়। প্রায় দুই ঘণ্টা তাকে জেরা করে। এরপর বর্ডার এজেন্সি কানাডা প্রবেশের অনুমতি দেয়া থেকে বিরত থাকে।

মুরাদ হাসান কানাডা যাচ্ছেন এই খবর চাউর হওয়ার পর কানাডায় অবস্থানরত বাংলাদেশের নাগরিকরা তাকে দেশটিতে প্রবেশের অনুমতি না দিতে অসংখ্য বার্তা পাঠান সরকারের কাছে। বার্তায় তারা মুরাদ হাসানের বিভিন্ন ভিডিও ক্লিপ ও সংবাদপত্রে প্রকাশিত রিপোর্ট সংযুক্ত করেন। এতে তারা বলেন, মুরাদ হাসান কানাডার জন্য হুমকিস্বরূপ। তিনি এদেশে থাকলে বিশৃঙ্খলা হতে পারে।

মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগের পরও তিনি কূটনৈতিক পাসপোর্ট জমা না দিয়ে কানাডা সফরের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছিলেন। কূটনৈতিক পাসপোর্ট দেখানোর পরও বর্ডার এজেন্সি তাকে কানাডা প্রবেশের অনুমতি দেয়নি। বর্ডার এজেন্সি শেষ পর্যন্ত তাকে আমিরাতের ফিরতি ফ্লাইটেই তুলে দেয়। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত মুরাদ হাসান দুবাইয়ে অবস্থান করছেন। আগামীকাল রোববার তিনি দেশে ফিরে আসতে পারেন বলে দায়িত্বশীল একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

XS
SM
MD
LG