অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

চাল প্যাকেটজাত করে বিক্রি করা যাবে না: খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার


খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার

খোলা বাজার থেকে চাল কিনে তা প্যাকেটজাত করে বিক্রি করা যাবে না বলে জানিয়েছন বাংলাদেশের খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

বুধবার (০১ জুন) সচিবালয়ে চালের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

এ সময় দেশের বাজারে চালের আকস্মিক মূল্যবৃদ্ধির জন্য ৬টি বৃহৎ শিল্পগ্রুপ স্কয়ার, প্রাণ, সিটি, আকিজ, বসুন্ধরা ও এসিআইকে দায়ী করেন তিনি।

এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, "আমরা চিন্তা করছি যে এই সার্কুলার জারি করা যায় কি না যারা প্যাকেট করে চাল বিক্রি করবে তারা দেশের বাজার থেকে কিনতে পারবে না। তারা ৬৭ শতাংশ ট্যাক্স দিয়ে আমদানি করে প্যাকেট করবে। এটা আলোচনা চলছে।"

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, "এটা এখনও ফাইনাল হয়নি। তাদের যদি নিজস্ব মিল থাকে তারা সেখানে প্যাকেট করতে পারবে। কিন্তু বাজার থেকে চাল সংগ্রহ করে প্যাকেট করতে দেব না। এটা বিভিন্ন জায়গায় আমাদের ম্যাসেজটা, যেখানে তারা প্যাকেট করে সেখানে দেয়া হয়েছে। এরা ছাড়া তো কেউ প্যাকেট করে না। খুচরা কিনে তারা প্যাকেট করতে পারবে না। মিল মালিকরা নিজস্ব প্রডাকশন বিক্রি করতে পারবে।"

তিনি বলেন, "নিজস্ব মিল থাকলেও সে তার লাইসেন্সে যে মজুদের বিধান আছে তার বাহিরে মজুদ করতে পারবে না। মিলের যে পাক্ষিক ছাটাই ক্ষমতা তার তিনগুন সে মজুদ করতে পারবে। এটা হলো রোলিং। এর বাহিরে থাকলে সেটা অবৈধ মজুদ। এটাই আমরা স্কয়ারে পেয়েছি, ৫ হাজার মেট্রিক টন অতিরিক্ত। এর বাজার মূল্য প্রায় ৪০ কোটি টাকা।"

এর আগে চালের দাম ভোক্তার ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে রাখা এবং সরবরাহ পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সোমবার চাল মজুদকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কেউ অবৈধভাবে চাল মজুদ করলে ব্যবস্থা নেয়ারও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

অভিযোগ আছে, মিলাররা ধান-চাল মজুদ রাখছেন। একইভাবে করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোও মেমোরেন্ডাম অ্যাসোসিয়েশনের নীতি অনুমোদনের বাইরে গিয়ে ধান-চালের ব্যবসায় নেমেছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের পর দেশের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালাচ্ছে খাদ্য অধিদপ্তর।

অভিযান চালিয়ে দেশের দুই স্থানে স্কয়ার ও আকিজগ্রুপের অবৈধ চাল মজুদের তথ্য পাওয়ার কথাও জানান খাদ্যমন্ত্রী।

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র বলেন, "বিভিন্ন জেলায় আমরা অভিযান চালাচ্ছি। দিনাজপুরে স্কয়ারের একটি গোডাউনে একটি মিলও আছে, সেই মিলের যে পাক্ষিক ক্ষমতা দেয়া আছে তার তিনগুন সর্বোচ্চ তারা মজুদ করতে পারবে। একটি বাজারে যাবে একটি উৎপাদনে যাবে আরেকটি মজুদ থাকবে। সেটার পরেও প্রায় ৫ হাজার মেট্রিক টন প্রায় উদ্বৃত্ত ছিল। এটাকে সিলগালা করা হয়েছে এবং তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।"

ধারাবাহিকভাবে চালের অবৈধ মজুদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত রাখার কথা জানান খাদ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, "প্রত্যেক চালের বাজারে, আড়তে এবং মিলে এমনটি গ্রামাঞ্চলেও কৃষক ছাড়া কেউ যদি ধান কিনে মজুদ রাখে সেখানেও অভিযান চালানো হচ্ছে। এটা ধারাবাহিকভাবে চলবে।"

XS
SM
MD
LG