অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

আগামী মাস থেকে বিদ্যুৎ সংকট কমতে থাকবে: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা


বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন যে আগামী মাস থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ সংকটের কারণে জনগণের আর খুব একটা কষ্ট হবে না। শেখ হাসিনা বলেন, “ইউক্রেনে যুদ্ধের কারণে জ্বালানি কেনা এবং গ্যাস আনা কঠিন। শুধুমাত্র আমাদের দেশেই নয়; ইংল্যান্ড, আমেরিকা এবং জার্মানি; সর্বত্র জ্বালানি সাশ্রয়ের দিকে মনোযোগ দেয়া হচ্ছে। তারা সংগ্রাম করছে (বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করতে)। তাই আমাদেরও কিছুদিন কষ্ট করতে হয়েছে। ইনশাআল্লাহ, আগামী মাস থেকে হয়তো এমন দুর্ভোগ আর থাকবে না”

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শনিবার (১৯ নভেম্বর) গণভবনে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সভায় দেওয়া বক্তব্যে এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, “জ্বালানি ব্যবহারে সবাইকে মিতব্যয়ী হতে হবে। কারণ, পুরো বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দার সম্মুখীন। আমরা এর প্রভাব থেকে মুক্ত নই।”

চলমান পরিস্থিতিকে ভয়ানক বলে উল্লেখ করেন তিনি। এ কারণে, খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে এবং বিশ্বব্যাপী অর্থনৈতিক অবস্থা খুবই খারাপ হওয়ায় এক ইঞ্চি জমিও অনাবাদি না রাখার আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করেন আ্ওয়ামী লীগ সভানেত্রী।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, “আমরা যদি নিজেদের উৎপাদন বাড়াতে না পারি, তবে দুর্ভিক্ষের তাপ মোকাবেলা করতে পারব না।” বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আমরা সব জিনিস বেশি দামে কিনেছি, কিন্তু কম দামে মানুষকে সরবরাহ করছি, যাতে কেউ খাবারের সমস্যায় না পড়ে।”

আওয়ামী লীগ জনগণের কল্যাণে কাজ করে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, “আমাদের সব কাজ মানুষের কল্যাণের জন্য। আমরা এখানে নিজেদের ভাগ্য গড়তে আসিনি, আমরা বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য গড়ছি।”

শেখ হাসিনা বলেন, “আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার আগে দেশের জনগণ প্রকৃত গণতন্ত্র ও গণতান্ত্রিক অধিকার ভোগ করেনি।” তিনি আরও বলেন, “নির্বাচনে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা হয়েছে, যা আমাদের আন্দোলন ও সংগ্রামের ফলাফল হিসেবে এসেছে।”

আ্ওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন, “২০০৮ সালের নির্বাচনের পর, গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকায় বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে এবং বিশ্বে আবারও মর্যাদা অর্জন করেছে।”

XS
SM
MD
LG