অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ভারতে নতুন প্রজাতির খবরে বাংলাদেশি বিশেষজ্ঞরা নড়েচড়ে বসেছেন


ভারতে নতুন প্রজাতির খবরে বাংলাদেশি বিশেষজ্ঞরা নড়েচড়ে বসেছেন

ভারতে করোনাভাইরাসের নতুন একটি প্রজাতি ধরা পড়ায় বাংলাদেশে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা কিছুটা নড়েচড়ে বসেছেন। কারণ এই প্রজাতি অতিদ্রুত সংক্রমণ ছড়ায়। শরীরে অ্যান্টিবডি থাকলেও সংক্রমণ ছড়াতে পারে।

ভারতে করোনাভাইরাসের নতুন একটি প্রজাতি ধরা পড়ায় বাংলাদেশে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা কিছুটা নড়েচড়ে বসেছেন। কারণ এই প্রজাতি অতিদ্রুত সংক্রমণ ছড়ায়। শরীরে অ্যান্টিবডি থাকলেও সংক্রমণ ছড়াতে পারে। যেহেতু ভারতের সঙ্গে যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু রয়েছে সেজন্য যেকোনো সময় বাংলাদেশে আসতে পারে। চিকিৎসার জন্য মেডিকেল ভিসায় বিপুল সংখ্যক মানুষ ভারত যাচ্ছেন।

অল ইন্ডিয়া ইন্সটিটিউট অব মেডিকেল সাইন্সের প্রধান রণদীপ গোলেরিয়ার বরাতে বার্তা সংস্থার মাধ্যমে ঢাকায় এই খবর এসেছে। গোলেরিয়া জানিয়েছেন, মহারাষ্ট্রে এই প্রজাতিটি প্রথম ধরা পড়ে। এখন পর্যন্ত ২৪০ জনের শরীরে নতুন এই প্রজাতির সন্ধান পাওয়া গেছে।

এই অবস্থায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাবেক বাংলাদেশি বিজ্ঞানী ডা. মোজাহেরুল হক মনে করেন, টিকা দিলেই বিপদ কেটে গেছে এমনটা ভাববার কোনো কারণ নেই। বরং আমাদেরকে আরও বেশি সতর্ক হতে হবে। টিকার গতিও বাড়াতে হবে। মনে রাখা দরকার, আমাদেরকে ১২ কোটি মানুষকে টিকা দিতে হবে। তিনি বলেন, গবেষণার মাত্রাও বাড়াতে হবে।

ওদিকে বাংলাদেশে টিকা নেয়ার পর কম সংখ্যক মানুষের মধ্যেই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয়েছে। এখন পর্যন্ত ৫৭৮ জন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার খবর জানিয়েছেন স্বাস্থ্য দপ্তরকে। সামান্য জ্বর, গা ম্যাজম্যাজ করা, মাথা ব্যাথা ও শারীরিক দুর্বলতায় ভুগছেন অনেকেই। তবে বড় ধরনের কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার খবর নেই। কাউকে হাসপাতালেও ভর্তি করতে হয়নি। গত ১২ দিনে টিকা নিয়েছেন ২০ লাখ ৮২ হাজার ৮৭৭ জন। ৭ই ফেব্রুয়ারি টিকাদান শুরু হয়েছে। ভারতের সেরাম ইন্সটিটিউট থেকে এ পর্যন্ত ৫০ লাখ টিকা পাওয়া গেছে। টিকা আসার কথা তিন কোটি।

এই যখন অবস্থা, তখন ভারতের সেরাম ইন্সটিটিউটের প্রধান নির্বাহী আদর পুনেওয়ালা এক টুইটে টিকা পাওয়ার অপেক্ষায় থাকা বিদেশি সরকারগুলোকে ধৈর্য্য ধরার অনুরোধ জানিয়েছেন। সেরামের তরফে বলা হয়েছে, করোনার টিকার ক্ষেত্রে ভারতে প্রয়োজনীয়তার দিক থেকে অগ্রাধিকার দেয়ার জন্য সরকার তাদের নির্দেশ দিয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আরও সাত জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ৩২৭ জন। এ নিয়ে মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়ালো পাঁচ লাখ ৪৩ হাজার ৩৫১ জনে।

please wait

No media source currently available

0:00 0:02:33 0:00
সরাসরি লিংক


XS
SM
MD
LG