অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সরকারের পদত্যাগ ও নতুন নির্বাচনের দাবি বাম জোটেরঃ মিছিলে লাঠিচার্জ


সরকারের পদত্যাগ ও নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নতুন নির্বাচনের দাবিতে বাম গণতান্ত্রিক জোটের মিছিল পুলিশি বাধায় পণ্ড হয়ে গেছে। একাদশ সংসদ নির্বাচনের প্রথম বার্ষিকীকে ‘কালো দিবস’ আখ্যা দিয়ে সোমবার সমাবেশ ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় অভিমুখে মিছিলের কর্মসূচি ছিল বাম দলগুলোর। দুপুরে প্রেস ক্লাবের সামনে সমাবেশ শেষে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের উদ্দেশে শুরু হওয়া মিছিল দুই দফা পুলিশের বাধার মুখে পড়ে। মৎস্য ভবন এলাকায় ব্যারিকেড ভেঙে জোটের নেতাকর্মীরা সামনে যেতে চাইলে পুলিশ এক পর্যায়ে লাঠিচার্জ করে।
পুলিশের হামলায় বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকীসহ অন্তত ২৫ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন বলে জোটের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে। এ হামলার প্রতিবাদে মঙ্গলবার বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে বাম জোট।
পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, জোটের নেতাকর্মীদের হামলায় ৫ জন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। আন্দোলনকারী ছয় জনকে আটক করা হয়েছে। ভিডিও ফুটেজ দেখে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়েছেন রমনা থানার ওসি মনিরুল ইসলাম।
ওদিকে পুলিশের অনুমতি না পাওয়ায় নির্বাচনের বর্ষপূর্তির দিনে পূর্ব নির্ধারিত সমাবেশ করতে পারেনি বিএনপি। সমাবেশের অনুমতি না পাওয়ায় মঙ্গলবার মহানগরীর থানায় থানায় বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে দলটি।
সরকারের পদত্যাগের দাবিতে বিকালে ‘গণতন্ত্র উদ্ধার আন্দোলন’ ব্যানারে ঢাকায় সমাবেশ করে সরকার বিরোধী কয়েকটি দল। সমাবেশে নেতারা সরকারের পদত্যাগ এবং একটি নিরপেক্ষ সরকারেরঅধীনে নতুন নির্বাচন দাবি করেন।
২০১৮ সনের ৩০শে ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ সংসদ নির্বাচনে ২৫৮ আসনে অভাবনীয় জয় পায় আওয়ামী লীগ। নির্বাচনের আগের রাতেই ভোট কারচুপির অভিযোগ তুলে ওই নির্বাচন বাতিলের দাবি করে আসছে বিরোধী পক্ষ। দিনটিকে ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ আখ্যা দিয়ে কর্মসূচি পালন করে তারা। অন্যদিকে এ দিনকে গণতন্ত্রের বিজয় দিবস উল্লেখ করে সমাবেশ করেছে আওয়ামী লীগ।

মতিউর রহমান চৌধুরী

মন্তব্যগুলো দেখুন

XS
SM
MD
LG