অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

নিরপেক্ষ অন্তর্বর্তী সরকারের অধীনে পরবর্তী নির্বাচনের দাবি জানালেন মির্জা ফখরুল


বিএনপির মহাসচিব  মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

বাংলাদেশের সরকার বিরোধী রাজনৈতিক দল বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন আগামী জাতীয় নির্বাচন অবশ্যই নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে হতে হবে।

শনিবার জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের ৪৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনায় অংশ নিয়ে বিএনপি মহাসচিব এমন মন্তব্য করে বলেন আগামীতে নির্বাচন হতে হবে নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশনের পরিচালনায়। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী পরিষদের বৈঠকে শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলীয় নেতা কর্মীদের নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত হওয়ার যে নির্দেশনা দিয়েছেন তার উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন প্রধানমন্ত্রী এটা কোন নির্বাচনের কথা বলেছেন সে সম্পর্কে তিনি সুস্পষ্ট করে কিছু বলেন নাই।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

তবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের শনিবার বিকলে ঢাকায় তাঁর বাসভবনে সাংবাদিকদের বলেছেন নির্বাচন ছাড়া ক্ষমতার পালাবদলের কোনো সাংবিধানিক পথ নাই।নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণই তাদের পরবর্তী সরকার নির্বাচিত করবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। ওবায়দুল কাদের বিএনপিকে এখন নির্বাচন মুখী হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন জনগণের রায় মেনে নেওয়ার সৎসাহস শেখ হাসিনার আছে।

বিএনপির মহাসচিব অবশ্য বলেছেন নির্বাচন করতে হলে সবার আগে বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে সহ রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে যাঁদের আটক করা হয়েছে তাঁদের সকলকে মুক্তি দিতে হবে। এছাড়া, বিএনপির ৩৫ লাখ নেতা কর্মীর বিরুদ্ধে তাঁর কথায় যেসকল মিথ্যা মামলা আছে সেসকল মামলা প্রত্যাহার করতে হবে বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন তার আগে দেশবাসী এই দেশে কোনো নির্বাচন হতে দেবে না।

মির্জা ফখরুল বলেন জনগণ অতীতের মত এমন কোন নির্বাচন আর হতে দেবে না যে নির্বাচনে ভোটাররা ভোট দিতে যেতে পারবেন না, তাঁদের বাড়িঘরে আক্রমণ করা হবে, ভোটকেন্দ্রে গেলে তাঁদের নির্যাতন করা হবে এমনকি ধর্ষণ করা হবে। তিনি বলেন তথাকথিত নির্বাচনের মাধ্যমে এক ব্যক্তির শাসন পুনরায় কায়েম করার যে কোন পরিকল্পনাকে বিএনপি দেশের জনগণকে সাথে নিয়ে ব্যর্থ করে দেবে।

এ দেশের মানুষ রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য স্বাধীনতার যুদ্ধ করেছিলেন বলে উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন সেই রাজনৈতিক মুক্তির পরিবর্তে এখন কেউ কথা বলতে পারছে না, লিখতে পারছে না এবং সভা-সমাবেশ করতে পারছেনা। তিনি বলেন জনগণের সকল অধিকার কেড়ে নিতে একদলীয় শাসন কায়েমের জন্য তত্ত্বাবধায়ক সরকারের বিধানটাকে একতরফা ভাবে বাদ দেয়া হয়েছে। একটি সুষ্ঠু গণতান্ত্রিক নির্বাচনের মাধ্যমে শান্তি পূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তরের জন্য নির্বাচনের আগে সকলের কাছে গ্রণনযোগ্য একটি নিরপেক্ষ সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের জন্য তিনি সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

XS
SM
MD
LG