অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ঢাকার বনানীতে বিএনপির কর্মসূচিতে হামলা, তাবিথ আউয়ালসহ আহত ১০ জন


হামলায় মাথায় চোট লাগায়, চিকিৎসার জন্য ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন তাবিথ আউয়াল।

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির মোমবাতি প্রজ্জ্বলন কর্মসূচিতে ছাত্রলীগ-যুবলীগের হামলায় বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়ালসহ কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছেন। শনিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় রাজধানী ঢাকার বনানীতে এই হামলার ঘটনা ঘটে।

হামলায় মাথায় চোট লাগায়, চিকিৎসার জন্য তাবিথ আউয়াল ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন বলে জানিয়েছেন তার একান্ত সচিব নাজমুল হুদা।

বিএনপির মিডিয়া সেলের সদস্য শায়রুল কবির খান জানান, “সন্ধ্যা ৭টা ৪৫ মিনিটের দিকে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে এবং পুলিশের গুলিতে তিনজন কর্মী নিহত হওয়ার প্রতিবাদে বিএনপির মোমবাতি প্রজ্জ্বলন কর্মসূচি করছিল। সেখানে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা হঠাৎ উপস্থিত হয়ে ইট-পাটকেল ও লাঠিসোঁটা নিয়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালায়।”

শায়রুল কবির আরও বলেন, “আমাদের কর্মসূচি সন্ধ্যা ৭টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত কাকলী থেকে গুলশান-২ পর্যন্ত চলার কথা ছিল। কিন্তু আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা তা ঠেকাতে ঘণ্টাখানেক আগে থেকেই সড়ক অবরোধ করে রাখে।”

হামলায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সেলিমা রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়ে এবং দলের আরও কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন।

মোয়াজ্জেম বলেন, “অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার আগেই তারা রাস্তার উল্টো দিকে অবস্থান নেয় এবং ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বক্তব্য দেওয়ার সময় হামলা চালায়। তারা কীভাবে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে হামলা করতে পারে বুঝতে পারছি না।”

বনানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নূর ই আজম মিয়া বলেন, “আওয়ামী লীগ কর্মীরা ‘বিএনপির কর্মসূচির ঠিক পাশেই একটি সমাবেশ করছিল’, যেখান থেকে কিছু কর্মী ‘বিরোধী কর্মীদের ধাওয়া করে’। কিভাবে বিএনপির সমাবেশে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়েছিল তা কমবেশি জানা গেছে। তবে, হামলার বিষয়ে আমাদের কাছে কোন প্রতিবেদন নেই।”

XS
SM
MD
LG