অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

তিন দিনের সফরে ঢাকা আসছেন বিশ্বব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট মার্টিন রাইজার


বিশ্বব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট মার্টিন রাইজার

বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের ভাইস প্রেসিডেন্ট মার্টিন রাইজার শনিবার (১২ নভেম্বর) তিন দিনের সফরে ঢাকায় আসছেন। তার এই সফরের লক্ষ্য হচ্ছে, বাংলাদেশকে স্থিতিস্থাপক ও অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিতে যে সকল গুরুত্বপূর্ণ সংস্কার সাহায্য করতে পারে, সেসব বিষয়ে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে আলোচনা করা।

সফরের বিষয়ে রাইজার জানিয়েছেন “আমি আবারও বাংলাদেশে আসার সুযোগ পেয়ে এবং দেশটির সরকারের সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ সংস্কারমূলক কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা করার সুযোগ পেয়ে আনন্দিত।”

তিনি জানান, “ আলোচনার মধ্যে থাকবে, দেশটিকে স্থিতিস্থাপক ও অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিতে এবং জনগণের জন্য সুযোগ তৈরিতে সাহায্য করতে পারে এমন বিষয়গুলো।”

শুক্রবার (১১ নভেম্বর) বিশ্বব্যাংক জানিয়েছে, আলোচনা কালে ভাইস প্রেসিডেন্ট মার্টিন রাইজার-এর সঙ্গে থাকবেন বাংলাদেশ ও ভুটানের কান্ট্রি ডিরেক্টর আব্দুলায়ে সেক।

তিন দিনের সফরে রাইজার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালসহ সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। এসময় রাইজার, কান্ট্রি ডিরেক্টর আব্দুলায়ে সেক-এর সঙ্গে তাদের পরিচয় করিয়ে দেবেন। সেক ২০২৩ সালের ১ জানুয়ারি বাংলাদেশ ও ভুটানের জন্য বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টরের দায়িত্ব নেবেনর। তারা বিশ্বব্যাংকের-সহায়তায় চলমান একটি প্রকল্পও পরিদর্শন করবেন।

আব্দুলায়ে সেক বলেন, “দারিদ্র্য হ্রাস, জলবায়ু পরিবর্তনের অভিযোজন ও দুর্যোগ-ঝুঁকির প্রস্তুতি এবং স্কুলে অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে লিঙ্গ সমতাসহ উন্নয়নের অনেক ক্ষেত্রেই বাংলাদেশের একটি অভাবনীয় রেকর্ড রয়েছে। আমি বাংলাদেশের সরকার ও জনগণের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করতে উন্মুখ। কারণ দেশটি ২০৩১ সালের মধ্যে উচ্চ-মধ্যম আয়ের মর্যাদা অর্জনের লক্ষ্যে কাজ করছে।”

সেনেগালের নাগরিক সেক ১৯৫৫ সালে একজন অর্থনীতিবিদ হিসেবে বিশ্বব্যাংকে যোগ দেন। তারপর থেকে বিভিন্ন দেশে গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। বাংলাদেশে দায়িত্ব নেওয়ার আগে সেক ক্যামেরুন, মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্র, নিরক্ষীয় গিনি, গ্যাবন ও কঙ্গো প্রজাতন্ত্রের কান্ট্রি ডিরেক্টর হিসেবে কাজ করেছেন। এছাড়া, তিনি আফগানিস্তান, মিয়ানমার ও মলদোভার জন্য বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ম্যানেজার হিসেবে কাজ করেছেন।

স্বাধীনতার পর বাংলাদেশের উন্নয়ন সহযোগীদের মধ্যে বিশ্বব্যাংক প্রথম সহায়তাকারী। বাংলাদেশে বর্তমানে বিশ্বব্যাংকের ১,৫৭০ কোটি ডলারের ৫৫ টি প্রকল্প চলমান।

XS
SM
MD
LG