অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

টিকার সংকট, বাংলাদেশের পাশে যুক্তরাষ্ট্র


বাংলাদেশে টিকা নিয়ে যখন হাহাকার চলছে, ঠিক তখনই সুখবর দিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন। জানালেন, যুক্তরাষ্ট্র অ্যাস্ট্রাজেনেকার ১০ লাখ ৮০০ ডোজ টিকা দিতে সম্মত হয়েছে। কোভ্যাক্সের আওতায় এই টিকা আসবে। তবে কবে নাগাদ আসবে তা অবশ্য মন্ত্রী জানাননি। প্রথম ডোজ দেয়ার পর ১৫ লাখ মানুষ দ্বিতীয় ডোজের অপেক্ষায়। টিকার অভাবে ঢাকায় ২৮টি কেন্দ্র ইতিমধ্যেই বন্ধ হয়ে গেছে। চালু আছে ১৯টি। তবে অল্প অল্প করে টিকা দেয়া হচ্ছে। ঢাকার বাইরে ৪২টি জেলায় টিকাদান বন্ধ হয়ে গেছে। ২২ জেলায় চালু থাকলেও টিকা কার্যক্রমে কোনো গতি নেই। এই অবস্থায় টিকার ঘাটতি মেটাতে বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্র, চীন, জাপান, রাশিয়া, যুক্তরাজ্যসহ বিভিন্ন দেশের কাছে সহযোগিতা চেয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ২০ লাখ ডোজ টিকা চেয়ে একাধিক কূটনৈতিক পত্র লিখেছে। আগামী সপ্তাহে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাতিসংঘ সদর দপ্তরে রোহিঙ্গা পরিস্থিতি নিয়ে পূর্ব-নির্ধারিত এক বৈঠকে যোগ দিতে যুক্তরাষ্ট্র যাচ্ছেন। এরপর তার ওয়াশিংটন যাওয়ার কথা রয়েছে। সেখানে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেনের সঙ্গে একটি সংক্ষিপ্ত বৈঠক হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ঢাকায় বিদেশ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, এসময় টিকাই হবে অন্যতম ইস্যু।

উল্লেখ্য যে, ভারতের সেরাম ইন্সটিটিউট চুক্তি অনুযায়ী টিকা দিতে না পারায় সংকটে পড়েছে বাংলাদেশ। তিন কোটি ডোজ টিকা দেয়ার কথা থাকলেও দিয়েছে ৭০ লাখ ডোজ। এরপরই তারা হঠাৎ করে রপ্তানি বন্ধ করে দেয়। ভারতের তরফে বলা হয়েছে, নিজেদের প্রয়োজন না মেটানো পর্যন্ত রপ্তানি বন্ধ থাকবে। তারপরই বাংলাদেশ বিশেষভাবে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের দিকে নজর দেয়। চীন সম্মত হলেও একজন বাংলাদেশি কর্মকর্তার অতি উৎসাহের কারণে দেড় কোটি ডোজ টিকার আলোচনা ভেঙ্গে যায়। আর এই সংকট তৈরি হয় টিকার মুল্য নিয়ে। ওই কর্মকর্তা সংবাদ সম্মেলনে জানান, বাংলাদেশ ১০ ডলার মূল্যে টিকা কিনছে। এই খবর ঢাকার সংবাদমাধ্যমে প্রকাশের পর চীন বাংলাদেশের সঙ্গে চুক্তি করতে অসম্মতি জানায়। কারণ একই সময়ে তারা ১৫ ডলার মুল্যে শ্রীলঙ্কায় টিকা বিক্রি নিয়ে দর কষাকষি করছিল। গোপন সিদ্ধান্ত প্রকাশ করার অভিযোগে ওই কর্কর্তাকে ওএসডি করা হয়। বাংলাদেশ চীনের কাছে দুঃখ প্রকাশ করে। এ নিয়ে এখনো কূটনৈতিক চিঠি চালাচালি অব্যাহত রয়েছে। চীন উপহার হিসেবে ১১ লাখ ডোজ টিকা দিয়েছে। পাঁচ লাখ ডোজ আগেই পৌঁছেছে। ছয় লাখ ডোজ আসবে আগামী রোববার।

ওদিকে গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় আরও ৪৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা ১৩ হাজার ছাড়ালো। এ সময় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন দুই হাজার ৪৫৪ জন।

XS
SM
MD
LG