অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

আফগানিস্তান সম্পর্কে স্বাধীন ভাবে সিদ্ধান্ত নেবে বাংলাদেশ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন  


বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন আফগানিস্তান ইস্যুতে দেশটির সদ্য গঠিত সরকারের অবস্থান ও নীতি দেখে বাংলাদেশ স্বাধীনভাবে তার সিদ্ধান্ত নেবে।

ইউরোপের তিন দেশ সুইজারল্যান্ড, ব্রিটেন এবং নেদারল্যান্ডসে ১০ দিনব্যাপী এক সফর শেষে বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকায় ফিরে বিকলেই আব্দুল মোমেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এমন মন্তব্য করেন।তিনি বলেন বাংলাদেশ আফগান পরিস্থিতি এখনও পর্যবেক্ষণ করছে। ভারত ও পাকিস্তানের আফগান নীতি দেখে বাংলাদেশ তার সিদ্ধান্ত নেবে না বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন বাংলাদেশ তার সিদ্ধান্ত নিজের মতো করেই নেব। তিনি বলেন আফগানিস্তান সার্কের সদস্য এবং বাংলাদেশের সঙ্গে দেশটির সম্পর্ক রয়েছে এবং সেই হিসেবে আফগানিস্তানের উন্নতি হোক এটাই চায় বাংলাদেশ। তাঁর মতে বৃহত্তর জনগণের সরকার হলে তাদের স্বাগত জানানো উচিত।

করোনা ভাইরাসের টিকা নিয়ে ধনী দেশগুলোর অবস্থানের সমালোচনা করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন টিকা নিয়ে কোন বৈষম্য হবেনা বলে যতটা আশা করা হয়েছিল ততটা হয়নি। তিনি বলেন ধনী দেশগুলো করোনা ভাইরাসের অনেক টিকা মজুত করে রেখেছে এবং অনেক ক্ষেত্রে এসকল টিকার মেয়াদ শেষ হয়ে এলেও তা অন্যদের দিচ্ছে না। তিনি হতাশা ব্যক্ত করে বলেন কিছু কিছু ক্ষেত্রে এ সকল মজুত টিকার মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যাওয়ায় সেগুলোকে ফেলে দেয়া হচ্ছে। ধনী দেশগুলোকে ইঙ্গিত করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন কখনো কখনো তাঁরা টিকা দিচ্ছে কিন্তু কিছু একটার বিনিময়ে তাঁরা তা দিয়ে থাকে। তিনি অভিযোগ করেন টিকা দাতারা এ জন্য পরোক্ষভাবে চাপও সৃষ্টি করে থাকে।

যুক্তরাজ্যসহ বিভিন্ন দেশ তাদের বার্ষিক মানবাধিকার রিপোর্টে বাংলাদেশের বিষয়ে যে তথ্য দেয় সেটাকে পররাষ্ট্র মন্ত্রী মোমেন অপরিপক্ব বলে আখ্যায়িত করেন। এই ধরনের রিপোর্টকে দুঃখজনক বলে উল্লেখ করে তিনি তাদেরকে সঠিক তথ্য প্রকাশ করার পরামর্শ দেন। তিনি বলেন বাংলাদেশে করোনার প্রাদুর্ভাব কমে যাওয়ায় যুক্তরাজ্যে প্রবেশে লাল তালিকা থেকে বাংলাদেশিদের বাদ দেওয়ার জন্য তিনি ব্রিটিশ সরকারকে অনুরোধ করেছেন।

এছাড়াও তিনি এই সংবাদ সম্মেলনে তার সদ্য সমাপ্ত ইউরোপ সফর সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরেন।

XS
SM
MD
LG