অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ভারত থেকে দুই মাসে ফিরেছেন ৪৪৫ জন বাংলাদেশী


ভারতে বিতর্কিত নাগরিকত্ব আইন সংশোধন হওয়ার পরের দুই মাসে ৪৪৫ জন বাংলাদেশী দেশে ফিরেছেন। এরা অবৈধভাবে ভারতে অবস্থান করছিলেন। গত এক বছরে সীমান্ত দিয়ে অবৈধভাবে প্রবেশ ও সীমান্ত পার করার চেষ্টা করায় আটক করা হয় অন্তত এক হাজার জনকে। সীমান্ত রক্ষী বাহিনী- বিজিবি'র মহাপরিচালক মেজর জেনারেল সাফিনুল ইসলাম এ তথ্য জানিয়েছেন। ফেরত আসা ব্যক্তিদের সঙ্গে ভারতের নাগরিকপঞ্জি বা নাগরিকত্ব আইনের কোনো সম্পর্ক নেই বলে জানান বিজিবি প্রধান।

গত ২৫-৩০শে ডিসেম্বর নয়া দিল্লিতে অনুষ্ঠিত বিজিবি-বিএসএফ মহাপরিচালক পর্যায়ের বৈঠকের বিষয় জানাতে বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলন করেন সাফিনুল ইসলাম। জানান, ছয় দিনের ঐ সম্মেলনে এনআরসি নিয়ে কোন আলোচনা হয়নি। বিগত চার বছরের মধ্যে গত বছর সীমান্ত হত্যা সর্বোচ্চ হওয়ায় এ নিয়ে বিজিবি'র পক্ষ থেকে বৈঠকে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়।

বৈঠকে সীমান্ত অতিক্রম ও মানব পাচাররোধে পদক্ষেপ এবং একযোগে সমন্বিত টহল জোরদার করতে উভয় পক্ষ সম্মত হয়েছে বলে বিজিবি'র পক্ষ থেকে জানানো হয়। সম্মেলনে বাংলাদেশের ১১ সদস্যের এবং ভারতের ১৯ সদস্যের প্রতিনিধিদল অংশ নেয়।

ওদিকে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট দাবি করেছে গত এক বছরে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ৩১,৫০৫ জন বিভিন্নভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। এর মধ্যে ১০৮ জন হত্যাকান্ডের শিকার হন। ধর্ষণ, প্রতিমা ভাংচুর, বাড়িতে অগ্নিসংযোগ, জমি দখল, ধর্মান্তর, দেশত্যাগে বাধ্য করাসহ এমন ৬ শতাধিক ঘটনা ঘটে এই সময়ে। বৃহস্পতিবার ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে জোটের পক্ষে এই তথ্য তুলে ধরেন মহাসচিব গোবিন্দ চন্দ্র প্রামাণিক। তিনি অভিযোগ করেন, বিগত সময়ে সংগঠিত ঘটনাগুলোর বিচার না হওয়ায় এমন ঘটনা বেড়েই চলছে।

please wait

No media source currently available

0:00 0:01:45 0:00
সরাসরি লিংক



XS
SM
MD
LG