অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

উগ্রবাদ নিয়ে যখনই আমরা কথা বলি, তখন কোন বয়স্ক ব্যক্তি নয়, রীতিমত তরুণকে দেখি উগ্রবাদী হিসেবে। তারুণ্য এবং উগ্রবাদ প্রায় সমার্থক হয়ে দাঁড়িয়েছে , যদিও একথা আদৌ বলা ঠিক নয় যে তরুণ মাত্রই উগ্রবাদী। কিন্তু এ কথাতো ঠিক তরুণ মাত্রই আবেগপ্রবণ এবং স্বপ্নচারী। সেই স্বপ্ন যেমন নিজেকে নিয়ে তেমনি তা আবর্তিত হয়, সমাজকে নিয়েও। কখনো তা সমাজবাদী বিপ্লবে, কখনো তা মুক্তি সংগ্রামে, কখনো তা স্বাজাত্যবোধে, কখনো বা তা গণতান্ত্রিক আন্দোলনে প্রতিফলিত হয় , হয় প্রজ্জ্বলিত। তবে সবচেয়ে বিস্ময়কর বিষয় হচ্ছে যে এখনকার তরুণদের একাংশ ধর্মীয় ভাবাবেগ দ্বারা এতটাই পরিচালিত যে তারা সহজেই এক শ্রেণীর ধর্ম ব্যবসায়ীর খপ্পড়ে পড়ে যায়। কয়েক দশক আগেকার ধর্ম নিরপেক্ষ কিংবা অন্তত অসাম্প্রদায়িক চেতনায় অনুরক্ত তারুণ্যের পরিবর্তে এখন এসছে ভিন্ন ধরণের তরুণ, ভিন্নমুখী তরুণ ; অগ্রযাত্রার পরিপন্থি তরুণ ।

এই উগ্রবাদী মনোভাব পোষণের পেছনে এক ধরণের মনস্তত্ব কাজ করে। আর্থ-সামাজিক বঞ্চনার প্রায়োগিক দিকই হোক কিংবা আদর্শ জগতের কল্পলোকের বাসনাই হোক তারুণ্যকে টানে এক ধরণের উগ্রবাদী মনোভাবের দিকে। পাশ্চাত্যের বিরুদ্ধে এক ধরণের মনোভাব , এক ধরণের কল্প কাহিনী চালু করা হলো, ইংরেজিতে যাকে বলা হয় ন্যারেটিভ সেই রকম বিবরণ তৈরি করা হলো যাতে ঘৃণার উদ্রেক ঘটে সহজেই।

XS
SM
MD
LG