অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশ ভবিষ্যতে প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের ব্যবসায়িক সেতুবন্ধন হিসেবে কাজ করবে ঃ শেখ হাসিনা


বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা - ফাইল ফটো- রয়টার্স

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ ভবিষ্যতে প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের মধ্যে ব্যবসায়িক যোগাযোগের সেতুবন্ধন হিসেবেই গড়ে উঠবে। শেখ হাসিনা রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বাংলাদেশ বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্মেলন-২০২১ উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির ভাষণে এই আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষ্যে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি এই সম্মেলনের আয়োজন করে। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভার্চুয়াল এই সম্মেলনের উদ্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, যেসব ব্যবসায়ী বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে আসবেন তারা এখান থেকে দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পুর্ব এশিয়ার দেশগুলোর বাজার ধরার একটা সুযোগ পাবেন।

এজন্য সরকার সড়কপথ, নৌপথ, রেলপথ ও আকাশপথ যাতে উন্নত হয় তার ব্যবস্থা নিচ্ছে, উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। সপ্তাহব্যাপী এই আন্তর্জাতিক সম্মেলনে বিশ্বের ৩৮ টি দেশের ৫৫২ জন উদ্যোক্তা, ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান অংশ নিচ্ছে। অনুষ্ঠানে সম্মেলনের ওপর একটি অডিও ভিজুয়্যাল প্রেজেন্টেশন পরিবেশিত হয়।

উদ্যোক্তা ও অংশগ্রহণকারীদের ধন্যবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই সম্মেলন থেকে বাংলাদেশ ৯টি খাতের সম্ভাবনা দেখছে। এর মধ্যে রয়েছে অবকাঠামো, তথ্য প্রযুক্তি ও ফিনটেক, চামড়া, ঔষুধ, স্বয়ংক্রিয় ও ক্ষুদ্র প্রকৌশল, কৃষিপণ্য, খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ, পাট ও বস্ত্রশিল্প। শেখ হাসিনা বলেন, নতুন আর কী কী পণ্য আমরা উৎপাদন করতে পারি এবং রপ্তানি করতে পারি সেটাও গবেষণা করে বের করতে হবে। আমাদের বিবেচনা করে দেখতে হবে পৃথিবীর কোন কোন দেশে কী কী পণ্যের চাহিদা রয়েছে। কাজেই আমাদের যারা ব্যবসায়ী বন্ধু রয়েছেন বিশেষ করে বেসরকারি খাতে তাদের প্রতি আমি অনুরোধ জানাবো, আপনারা এই বিষয়ের দিকে বিশেষভাবে নজর দিন।

বাংলাদেশ বিশ্বে ৩৮ টি দেশে একতরফা শুল্কমুক্ত রপ্তানির সুবিধা পাচ্ছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক বাণিজ্যিক জোটের সঙ্গে নিবিড়ভাবে কাজ করে যাচ্ছি। যেমন আঙ্কটাড, ইউএন-এসকাপ, ইউরোপীয় কমিশন, বিমসটেক, আফটা ইত্যাদি।

XS
SM
MD
LG