অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

দিল্লীতে ওমিক্রন আক্রান্তের সন্ধান, এই নিয়ে ভারতে পঞ্চম


দিল্লী- ছবি - অ্যাডোবে স্টক

কয়েকদিন আগে তানজানিয়া থেকে ভারতে এসেছিলেন এক ব্যক্তি। বিমান বন্দরেই দেখা যায়, তার হালকা জ্বর আছে। তিনি লোকনায়ক জয়প্রকাশ হাসপাতালে ভর্তি হন। পরে কোভিড টেস্টে পজিটিভ হয়েছিলেন। তার দেহ থেকে নমুনা সংগ্রহ করে জিনোম সিকোয়েন্সিং-এর জন্য পাঠানো হয়েছিল। রবিবার জানা গেল, তিনি কোভিডের ওমিক্রন ভ্যারিয়ান্টে আক্রান্ত হয়েছেন। এই নিয়ে ভারতে পাঁচজন ওমিক্রন আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গেল। সরকারি সূত্রে জানানো হয়েছে, ওই ব্যক্তি আগে কোন কোন দেশে গিয়েছেন তার খোঁজ নেওয়া হচ্ছে।

গত সপ্তাহের শুরুতে কর্নাটকে প্রথম দু'জন ওমিক্রন আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া যায়। পরে গুজরাট ও মহারাষ্ট্র থেকে আরও একজন করে ওমিক্রন আক্রান্তের সন্ধান মেলে। গত ২৫ নভেম্বর প্রথমবার দক্ষিণ আফ্রিকায় ওই ভ্যারিয়ান্টের সন্ধান পাওয়া যায়।

এর মধ্যে জানা যায়, যে দেশগুলিতে ওই ভ্যারিয়ান্ট ছড়িয়ে পড়েছে, সেখান থেকে কয়েকজন ভারতে এসে 'নিখোঁজ' হয়ে গিয়েছেন। তারা বাধ্যতামূলক কোভিড টেস্ট করাননি। কোয়ারান্টাইনেও থাকেননি। তাদের থেকে ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা।

সরকারি সূত্রে খবর, উত্তরপ্রদেশের মিরাটে সম্প্রতি ৩০০ জন বিদেশ থেকে এসেছেন। তাদের মধ্যে ১৩ জনের খোঁজ নেই। সংবাদ সংস্থার খবর অনুযায়ী, যাদের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না, তাদের অন্তত সাতজন এসেছেন দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে। ওই দেশেই প্রথম ওমিক্রন ভ্যারিয়ান্ট দেখা দিয়েছিল।

চণ্ডীগড় পুলিশ সূত্রে খবর, গত বুধবার দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে এক মহিলা ভারতে আসেন। বিমান বন্দরে তার কোভিড পরীক্ষায় নেগেটিভ আসে। বিমান বন্দর কর্তৃপক্ষ তাকে বাড়িতে কোয়ারান্টাইনে থাকতে বলে। কিন্তু তিনি বাড়িতে না গিয়ে হোটেলে উঠেছিলেন।

দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে বেঙ্গালুরুতে এসে নিখোঁজ হয়ে গিয়েছেন ১০ জন। কর্নাটকের রাজস্ব মন্ত্রী আর অশোক জানিয়েছেন, বিমান বন্দরের নিরাপত্তারক্ষীরা তাদের খুঁজছেন।

শনিবার জিম্বাবোয়ে থেকে জামনগর আসেন ৭১ বছর বয়সি এক ব্যক্তি। টেস্টে তিনি কোভিড ১৯ পজিটিভ হন। তার নমুনা সংগ্রহ করে জিনোম সিকোয়েন্সিংয়ের জন্য পাঠানো হয়। তাতে বেরিয়েছে, তিনি ওমিক্রন আক্রান্ত। এর আগে কর্নাটকে বিদেশ থেকে আসা দুজন ওমিক্রন পজিটিভ হন।

XS
SM
MD
LG