অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

করোনা সংক্রমণ রোধ করতে মমতার কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার চিন্তাভাবনা


মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেওয়ার পরেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেছিলেন, তাঁর প্রথম ও প্রধান কাজ হবে কোভিড সংক্রমণের মোকাবিলা করা। সেই অনুযায়ী আজ দুপুরে রাজভবন থেকে নবান্নে ফিরেই প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন মুখ্যমন্ত্রী। তারপর একটি ভার্চুয়াল সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি জানান, রাজ্যে করোনা সংক্রমণ যে ভাবে ছড়িয়ে পড়েছে তাতে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া ছাড়া উপায় নেই। এখনই রাজ্যে পুরোপুরি লকডাউন করতে তিনি চাইছেন না। কিন্তু কয়েকটা কড়াকড়ি করতেই হবে।

করোনা সংক্রমণ রোধ করতে মমতার কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার চিন্তাভাবনা
please wait

No media source currently available

0:00 0:02:34 0:00
সরাসরি লিংক

যেমন বাইরে বেরোলে সকলকে মাস্ক পরতেই হবে। আগামীকাল ৬ই মে থেকে রাজ্যে লোকাল ট্রেন পুরোপুরি বন্ধ থাকবে। মেট্রো রেল ও সড়ক পরিবহনে যানবাহন ৫০ শতাংশের মতো চলবে। সরকারি অফিসে উপস্থিতিও যেন ৫০ শতাংশের বেশি না হয়। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে তাঁর অনুরোধ, বাড়ি থেকে কাজ করার ব্যবস্থা করতে। বাজারহাটের সময় কিছুটা বদলে সকাল ৭টা থেকে ১০টা এবং বিকেল পাঁচটা থেকে সাতটা করা হয়েছে। এ ছাড়া সোনার দোকান বেলা ১২টা থেকে তিনটে পর্যন্ত খোলা থাকবে। ব্যাংক কর্মীদের সকাল ১০টা থেকে বেলা দু'টো পর্যন্ত কাজ করার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। আর একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা, খবরের কাগজের হকারদের, পরিবহন কর্মীদের এবং সাংবাদিকদের ঝুঁকিপূর্ণ কাজে নিয়োজিত বলে গণ্য করা হবে এবং করোনা প্রতিষেধক দানের ব্যাপারে তাঁদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। এ ছাড়া যাঁরা দ্বিতীয় ডোজ পাবেন, তাঁদের ক্ষেত্রেও অগ্রাধিকার দেওয়ার কথা হচ্ছে। আজকেই কেন্দ্র থেকে তিন লাখ ডোজ কোভিশিল্ড ও এক লাখ ডোজ কোভ্যাক্সিন পশ্চিমবঙ্গে পৌঁছেছে। এতে প্রতিষেধক দানে কিছুটা সুবিধা হবে।

XS
SM
MD
LG