অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ জানালে কোনও রকম দমনমূলক ব্যবস্থা নেওয়া যাবে না-সুপ্রিম কোর্ট


ভারতে কেউ করোনা সংক্রান্ত কোনও বিষয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ জানালে তাদের ওপর কোনও রকম দমনমূলক ব্যবস্থা নেওয়া যাবে না বলে আজ সুপ্রিম কোর্ট রাজ্য সরকারগুলি ও পুলিশ প্রশাসনকে কঠোর ভাষায় সতর্ক করে দিয়েছে। সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়ের নেতৃত্বে তিন জনের একটি বেঞ্চ আজ শুক্রবার একটি মামলার শুনানিতে জোর দিয়ে বলেছে, ভারতে এখন একটা অস্বাভাবিক অবস্থা চলছে। লোকে করোনা সংক্রমিত হয়ে মারা যাচ্ছে। হাসপাতালে শয্যার অভাব, এমনকি ডাক্তার বা স্বাস্থ্যকর্মীরাও চিকিৎসা পাচ্ছেন না। অক্সিজেন সিলিন্ডারের অভাবে বহু লোকের মৃত্যু হচ্ছে। জীবনদায়ী ওষুধ পাওয়া যাচ্ছে না। এটাকে একটা জাতীয় জরুরি অবস্থা হিসেবে গণ্য করা উচিত। তা না করে কোনও কোনও রাজ্য যাঁরা এই নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় আবেদন জানাচ্ছেন কিংবা ক্ষোভ ব্যক্ত করছেন, তাঁদের গ্রেপ্তার করছে, দমন-পীড়ন করছে। এরকম যদি হয়, তা হলে সুপ্রিম কোর্ট সেটাকে আদালত অবমাননা হিসেবে বিচার করবে। সরকার ও পুলিশ প্রশাসনের মনে রাখা উচিত, জনগণের সেবা করতে হলে তাদের ক্ষোভের কারণগুলো বুঝতে হবে এবং তার প্রতিবিধান করতে হবে। বাস্তবকে অস্বীকার করলে তখনকার মতো অসন্তোষ ধামাচাপা দেওয়া যায়, কিন্তু গণতান্ত্রিক অধিকারকে গলা টিপে ধরা চলবে না।

সরাসরি লিংক

উল্লেখ করা যেতে পারে, সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশের যোগী আদিত্যনাথ সরকার ঘোষণা করেছে, অক্সিজেনের কোনও অভাব নেই। কোনও হাসপাতাল যদি এ ব্যাপারে মুখ খোলে তা হলে শাস্তিমুলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তা সত্ত্বেও হাসপাতালগুলো অবশ্য অক্সিজেনের অভাবের কথা বলে যাচ্ছে। একটি অল্পবয়সী ছেলে তার দাদু অক্সিজেন পাচ্ছেন না বলে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট দিয়েছিল, তাকে গুজব ছড়ানোর দায়ে হেনস্থা করা হয়েছে। এইসবের পরিপ্রেক্ষিতে ভারতের সর্বোচ্চ আদালতের আজকের এই পর্যবেক্ষণ ও নির্দেশ অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ।

XS
SM
MD
LG